অ্যান্টিবায়োটিক-হীন মুরগির স্মার্ট খামার

‘মাছে-ভাতে বাঙালি’- শহরের নতুন প্রজন্মের জন্য এ কথাটি সম্ভবত খুব একটা ঠিক নয়। বাবা-মায়েদের প্রায়ই বলতে শুনি, ‘আমার ছেলে-মেয়েরা তো মাছ খেতেই চায় না। না পারে মাছের কাঁটা বাছতে, না চায় খেতে। মুরগি হলে আর কথা নেই।’ তার মানে প্রাণিজ আমিষের ঘাটতি মেটাতে মুরগির চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। কিন্তু নিরাপদ খাদ্যের প্রশ্নে মুরগির মাংস নিয়ে শঙ্কা থেকে যাচ্ছে মানুষের মনে। সংশয় মুরগির খামারে অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহার নিয়ে। বিষয়টি অমূলক নয়। শুধু মুরগির মাংসেই নয়, অ্যান্টিবায়োটিক আতঙ্ক রয়েছে মাছ, গবাদি পশুর মাংস, ডিম, দুধেও। সাধারণত কোনো খাবার খেলে একটি নির্দিষ্ট সময় অতিবাহিত না হওয়া পর্যন্ত তার অবশিষ্টাংশ প্রাণীর শরীরে থেকে যায়। ঠিক তেমনি কোনো ওষুধ খেলেও তা একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত প্রাণীর দেহে রয়ে যায়। এ নির্দিষ্ট সময়কে বলা হয় প্রত্যাহার কাল বা Withdrawal period। প্রতিটি ওষুধের একটি নির্দিষ্ট ‘প্রত্যাহার কাল’ আছে।

এ ‘প্রত্যাহার কাল’ অতিবাহিত না হওয়া পর্যন্ত তা প্রাণিদেহে রয়ে যায় এবং এ থেকে যাওয়া অংশটাকে বলা হয় ওষুধের অবশিষ্টাংশ (Drug residues)। আর জীবাণু প্রতিরোধকারী ওষুধের ক্ষেত্রে বলা হয় Antibiotic residues. মাছ, মুরগি বা গবাদি পশুর শরীরে প্রয়োগকৃত অ্যান্টিবায়োটিকের অবশিষ্টাংশ প্রাণীর মাংস, ডিম ও দুধে থেকে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। আমরা হয়তো না জেনেই তা নির্দ্বিধায় গ্রহণ করছি খাবারের সঙ্গে। যা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক হুমকিস্বরূপ। এসব কথা ভেবেই আমরা এখন অর্গানিক খাবার খুঁজছি। বলা যায়, খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে গিয়ে নিরাপদ খাদ্যের অনিশ্চয়তা আমাদের পেয়ে বসেছে। সময় এখন নিরাপদ খাদ্যের অনিশ্চয়তা থেকে উত্তরণের। সারা পৃথিবী সেদিকেই হাঁটছে। বাড়ছে অর্গানিক খাদ্যের চাহিদা। তৈরি হচ্ছে অর্গানিক খাদ্যের বড় বাজার।

এমন চিন্তা থেকেই অনেকে যুক্ত হচ্ছেন অর্গানিক খাদ্য উৎপাদনে। কম্পিউটার প্রকৌশলী ইমরুল হাসানের কথাই বলা যাক। সপ্তাহ তিনেক আগে তাঁর সঙ্গে আমার পরিচয়। পাঠক! ইমরুল হাসানের গল্পই আপনাদের আজ বলতে চাই। গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার বরইতলী গ্রামের পাশ দিয়ে বয়ে গেছে বংশাই নদী। নদীতীরবর্তী একটি দোতলা বাড়ি ইমরুল হাসানের পৈতৃকভিটা। সপ্তাহ দুই আগে এক সকালে গিয়ে হাজির হলাম ইমরুলের সে বাড়িতে। আগেই বলেছি ইমরুল কম্পিউটার প্রকৌশলী। বুয়েট থেকে পাস করে কিছুদিন বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করে যুক্ত হন টেলিকমিউনিকেশন সেক্টরে। দেশে তিন বছর, আর বাইরে যুক্তরাষ্ট্র, মিসর, ফিলিপাইন, আবুধাবি প্রভৃতি দেশে ছয় বছর কাজ করেছেন। বাড়ির উঠোনে গাছের ছায়ায় বসে শুনছিলাম ইমরুলের কথা। বলছিলেন, ‘দুটি কারণে দেশে ফেরার তাগিদ অনুভব করলাম। বৃদ্ধ বাবা-মার পাশে থাকা প্রয়োজন তাঁদের দেখাশোনার জন্য। অন্যদিকে আমার মেয়েটা টুয়ে পড়ে।

এই সময়ে তাকে ছয়বার স্কুল পাল্টাতে হয়েছে। ২০১৪ সালের অক্টোবরে দেশে ফিরলাম। আইটি কনসালট্যান্সি, ব্যক্তিগত উদ্যোগ নিয়ে দেশে ফিরে ভালোই চলছিল সব। সারা পৃথিবীতে শুরু হলো করোনার অভিঘাত। আমিও করোনায় আক্রান্ত হলাম। হাসপাতালে ভর্তি হতে হলো। ভয়াবহ অবস্থা। হাসপাতালে শুয়েই চিন্তা করছিলাম আমাদের ইমিউন সিস্টেম নিয়ে। অর্থাৎ আমাদের খাবার আমাদের স্বাস্থ্যের সুরক্ষা দিচ্ছে না। খাদ্যের ভেজাল আমাদের সর্বনাশ করে দিচ্ছে। তখনই চিন্তা করলাম বেঁচে থাকলে অর্গানিক খাদ্য উৎপাদন করব। আল্লাহর অশেষ রহমতে এ যাত্রায় বেঁচে গেলাম। বেঁচে ফিরে চিন্তা করতে থাকলাম কীভাবে শুরু করা যায়। এর আগে কৃষির প্রতি টান থেকেই গরুর খামার, ছাগলের খামার করার চেষ্টা করেছিলাম। এবার পড়াশোনা শুরু করলাম অর্গানিক উপায়ে মুরগি উৎপাদনের। শুধু নিজের জন্য নয়, নিজের খাবারের পাশাপাশি উৎপাদন ব্যবস্থাটাকে বাণিজ্যিকরূপ দেওয়ার চেষ্টা করেছি। গত ডিসেম্বরে শুরু করলাম অর্গানিক চিকেনের খামার। এ ১০ মাসেই ব্যাপক সাড়া পেয়েছি।’

ইমরুলকে বললাম, চলুন কথা শুনতে শুনতে আপনার অর্গানিক মুরগির খামারটা ঘুরে দেখি। বেশ গুছিয়ে শুরু করেছেন ইমরুল। প্রকৌশলবিদ্যার অনেক কিছুই কাজে লাগাচ্ছেন খামারে। স্মার্ট ফার্মিং যেটাকে বলা হচ্ছে, যেমন খামারের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ, আলো-বাতাসের পর্যাপ্ততা নির্ণয়, পানি ব্যবস্থাপনা। সবই নিয়ন্ত্রণ হচ্ছে কম্পিউটারের মাধ্যমে। নিজের হাতে তৈরি সব প্রযুক্তি। ইমরুলের খামারের চারটি অংশ। একটি অংশে ব্রয়লার মুরগি। খামারের শেডে ছেড়ে মুরগি লালনপালন করেন। মুরগিগুলোর চলাফেরার জন্য যথেষ্ট জায়গা রেখেছেন। মনে পড়ছে এমনটা দেখেছিলাম জাপানের এক মুরগির খামারে। শেডে মুক্ত অবস্থায় মুরগি লালনপালন করছিলেন তারা। এমনকি শেডের বাইরে উন্মুক্ত স্থানে ঘুরে বেড়াবার ব্যবস্থা রাখা হয়েছিল মুরগির জন্য। দেখার সুযোগ হয়েছে ইংল্যান্ডের নিউ ক্যাসেলে টিউলিপ ফ্যামিলির জন্য লিনজ হাল ফার্মেও মুরগি লালনপালন করা হয় উন্মুক্ত জায়গায়। নরসিংদীর এক তরুণের খামারেও মুক্ত অবস্থায় মুরগি লালনপালন করতে দেখেছি। যা হোক, ইমরুলের ব্রয়লার মুরগি সাড়ে সাত শ। বলছিলেন, কোনোরকম অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহার করেন না তিনি। প্রশ্ন করলাম, আপনি না হয় অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহার করছেন না। কিন্তু আপনি যেখান থেকে ডে অল্ড চিকস (এক দিন বয়সী বাচ্চা) আনছেন, তারা যে অ্যান্টিবায়োটিক করছে না তা শতভাগ নিশ্চিত হচ্ছেন কীভাবে?

‘না, তার নিশ্চয়তা দেওয়া কঠিন।’ বলছিলেন ইমরুল। ‘তবে ১০ দিন পর আর রেসিডিউস থাকে না।’ আপনার খামারে মর্টালিটির হার কেমন? জানতে চাই। তিনি বলেন, ‘এখন একেবারেই কম, ২ কি ৩ পারসেন্টে নেমে এসেছে। যদিও বড় ধরনের বিপর্যয়ের ভিতর দিয়ে আমাকে দু-একবার যেতে হয়েছে। কিন্তু আমি এটা নামিয়ে নিয়ে এসেছি। এমনিতে সাধারণ খামারিরা ৫ পারসেন্ট মর্টালিটি রেট ধরেন।’

 

ওরা তো অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহার করে, আপনি অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহার না করে মর্টালিটি হার কীভাবে কমাতে পারছেন? জিজ্ঞাসা করি। ইমরুল জবাব দেন, ‘আমি অর্গানিক উপায়ে মুরগির স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়টি নিশ্চিত করছি। যেমন ধরুন আমি মুরগিকে নিয়মিত আপেল সিডার ভিনেগার খাওয়াচ্ছি। এটি রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।’

দেখলাম ইমরুলের খামারে মুরগিকে দানাদার খাবারের পাশাপাশি লাল শাক, শজনেপাতা ইত্যাদি খাবারও দেওয়া হচ্ছে। মুরগির বাচ্চাগুলোও সে খাবার ঠুকরে ঠুকরে খাচ্ছে। ইমরুলের খামারের দ্বিতীয় অংশে ৩ হাজার কালার বার্ড অর্থাৎ সোনালি জাতের মুরগি আছে। তার পাশেই দেড় শ মুরগি একেবারেই উন্মুক্ত রেখে লালনপালন করছেন। নানাভাবেই পরীক্ষা নিরীক্ষা করে এগোচ্ছেন তিনি। জানতে চাইলাম, বলছিলেন বিপর্যয়ের কথা, কী ধরনের বিপর্যয়ের ভিতর দিয়ে যেতে হয়েছে আপনাকে?

‘একবার ৪০% মুরগি মারা পড়ল। বেশ বড় হয়েছিল মুরগিগুলো। আর দিন দশেক পর বিক্রি-উপযোগী হয়ে উঠত। ফলে আমার লোকসান হলো ৬ লাখ টাকা। আরেকবার ৬০% মুরগি মারা পড়ল, ছোট অবস্থায় মারা যাওয়ার কারণে সেবার অবশ্য লোকসান কম হয়েছে, ১ লাখ ২৫ হাজার টাকার মতো। এ রকম ট্রায়াল অ্যান্ড অ্যাররের ভিতর দিয়ে এগোচ্ছি।’ জানালেন ইমরুল। বেশ উদ্যমী ইমরুল। নিজের কাজের জায়গাটা যেমন গোছানো, চিন্তাটাও পরিচ্ছন্ন। খামারের তৃতীয় অংশে আরও ৩ হাজার কালার বার্ড। বেশ বড় আকারের। বিক্রি-উপযোগী। জানতে চাইলাম, বেচাকেনার অবস্থা কী? জানালেন অনলাইনেই বিক্রি হয়ে যায় তার সব মুরগি। জবাই করে ফ্রিজিং ভ্যানে বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দেন। কী দরে বিক্রি করছেন? জানালেন, ‘২৫০ টাকা কেজিতে বিক্রি করছি।’ ২৫০ টাকা! বাজারে তো ১৬০-১৬৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। প্রায় ৮৫ টাকা বেশি দাম নিচ্ছেন আপনি।

অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহার না করলে তো আপনার উৎপাদন খরচ কম হওয়ার কথা। আপনি বলছেন, আপনার মর্টালিটির হারও কম। তাহলে দামটা বেশি হচ্ছে কেন? জানতে চাই আমি। ইমরুল আমাকে নিয়ে যান যেখানে মুরগির খাদ্য তৈরি হয় সেখানটায়। বেশ পুরনো একটা ঘর। হয়তো ওটাই ছিল একসময় তাদের বসতঘর। এখন সেখানে দুটি অত্যাধুনিক মেশিনে খাবার তৈরির কাজ চলছে। বললেন, ‘মুরগিকে অ্যান্টিবায়োটিক না দিয়ে ন্যাচারাল উপায়ে সুস্থ রাখতে চাইলে স্বাস্থ্যকর খাবার দিতে হয়। অর্গানিক গাইডলাইন মেনে স্বাস্থ্যকর খাবার নিশ্চিত করতে খরচটা বেশি হয়। তবে আমরা চেষ্টা করছি খরচটা আরও কীভাবে কমিয়ে আনা যায় সে বিষয়টি মাথায় রেখেই।’

জানতে চাইলাম, বড় বেতনের নিশ্চিত নিরাপত্তার চাকরি ছেড়ে এই ঝুঁকিপূর্ণ খামার গড়ে লাভের অঙ্কটা নিশ্চিত হবে তো? হাসলেন ইমরুল। ম্যাকবুক বের করে চুলচেরা হিসাবটা দেখিয়ে দিলেন আমাকে। বললেন, ‘কৃষিতে বিনিয়োগের সাহসটা পেয়েছি আপনার অনুষ্ঠান দেখে। আপনিই তো বলেন, বুঝেশুনে হিসাব কষে কৃষিতে নামলে হেরে যাওয়ার ভয় কম। সেই অনুপ্রেরণাতেই পথ চলছি।’

ইমরুলের খামার ঘুরে বেশ অনুপ্রাণিত হলাম। এমনটাই প্রত্যাশা ছিল আমার। সেই আশির দশকে টেলিভিশনে প্রচার করেছিলাম বাণিজ্যিক আকারে মুরগি লালনপালনের সম্ভাবনা নিয়ে। এর আগে গ্রামের বাড়িতে পলোর নিচে বা খোঁয়াড়ে মুরগি লালনপালন হতো। বাণিজ্যিকভাবে মুরগি লালনপালনের তথ্য সম্প্রচারের পর গ্রাম থেকে শহরের শিক্ষিত তরুণ, গৃহিণী গড়ে তোলেন মুরগির বাণিজ্যিক খামার। সারা দেশে লাখ লাখ খামার গড়ে ওঠে। তাদের হাত ধরেই আমাদের মুরগির উৎপাদন বেড়েছে। মিটিয়েছি প্রাণিজ আমিষের চাহিদার বড় একটি অংশ। এখন বিবেকসম্পন্ন শিক্ষিত তরুণ প্রজন্ম কৃষির হাল ধরলে পাল্টে যাবে কৃষির চিত্র। নিজ তাগিদে খামার ব্যবস্থাপনায় যে প্রযুক্তির ব্যবহার করেছেন ইমরুল তা অনুসরণ করে আরও শিক্ষিত তরুণ এগিয়ে আসবেন অর্গানিক খামার গড়তে। যেভাবে দেশ থেকে খাদ্যাভাব দূর হয়েছে, নিশ্চিত হয়েছে খাদ্য নিরাপত্তা। একদিন এই তরুণদের হাত ধরে নিরাপদ খাদ্যও নিশ্চিত হবে। ইমরুলের মতো তরুণ উদ্যোক্তার পাশে দাঁড়াতে হবে গণমাধ্যমকে, দাঁড়াতে হবে সরকারি-বেসরকারি সাহায্যকারী প্রতিষ্ঠানকে। একজন ইমরুল সফল হলে তার দেখাদেখি আরও ১০ জন তরুণ উদ্বুদ্ধ হবেন অর্গানিক কৃষিতে, প্রযুক্তির কৃষিতে। আর তাদের হাত ধরেই রচিত হবে আগামী দিনের নিরাপদ কৃষি। পৃথিবীতে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে সুস্বাস্থ্যের বাংলাদেশ।

লেখক : মিডিয়া ব্যক্তিত্ব।

 

আরও পড়ুন