আবরার মরেনি, অভিনয় করছে

বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা প্রত্যক্ষকারী আরাফাত, তিনিও বুয়েটের শেরেবাংলা হলে থাকেন। আবরারকে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা পিটিয়ে মুমূর্ষু অবস্থায় ফেলে রেখে যাওয়ার পর আরাফাত যখন আবরারকে দেখেন, তখন তাঁর পুরো শরীর ঠান্ডা হয়ে গেছে। বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের একদল নেতা-কর্মীর নির্যাতনে নিহত আবরারের শেষ সময়ের প্রত্যক্ষদর্শী আরাফাত ও আহনাফরা পুরো ঘটনা বর্ণনা দিতে গিয়ে আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন।

বুধবার (৯ অক্টোবর) বেলা দেড়টার দিকে এই দুই ছাত্র বিক্ষোভে অংশ নিয়ে ওই ঘটনার বর্ণনা দেন। তখন ওই দুই ছাত্রসহ অনেকেই কান্নায় ভেঙে পড়েন। এ সময় তারা আবরারের মৃত্যুর আগের পুরো ঘটনা বর্ণনা করেন।আবরারের বন্ধু আরাফাত আফসোস করে বলেন, তিন-চার মিনিট আগে তিনি যদি সেখানে উপস্থিত হতে পারতাম, তাহলেও হয়তো আবরারকে বাঁচানো যেত।আরাফাত আরো বলেন, পৌনে ২টার দিকে আমি যখন ডাইনিংয়ের দিকে যাচ্ছিলাম তখন আমাদের রুমের বারান্দার সামনে আবরারের দেহ ধড়পড় করছিল। আমি সেখানে (২০১১ নম্বর কক্ষ) গিয়ে বলেছি আববার অসুস্থ, তাকে দ্রুত হাসপাতালে নিতে হবে।

এ সময় আমাকে অমিত সাহা বলেছে, আবরার অভিনয় করছে। ও শিবির করে। আমরা পুলিশকে খবর দিয়েছি। পুলিশ এসে ওকে নিয়ে যাবে। এর পরও আমি ওদেরকে বলেছি, সে অভিনয় করছে না। ওর শরীর খুব খারাপ মনে হচ্ছে। এর পরও তারা নিষ্ঠুরভাবে বলেছে, আবরার অভিনয় করছে। এ সময় হত্যাকারীদের কেউ কেউ বলছিল, আবরার এখনো মরেনি ওকে আরো মারতে হবে। এই বর্ণনা দিতে গিয়ে আবরারের বন্ধু আরাফাত হাউমাউ করে কেঁদে ওঠেন।কান্নাবিজড়িত কন্ঠে হত্যাকাণ্ডের ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী বন্ধুরা সবার উদ্দেশ্যে ক্ষমা প্রার্থনা করেন এবং বলেন, আমরা আবরারকে বাঁচাতে পারিনি।

আরও পড়ুন