একুশে বইমেলা আওয়ামী বইমেলায় পরিণত হয়েছে: রিজভী

এবারের বইমেলা আওয়ামী লীগের বইমেলায় পরিণত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

মঙ্গলবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ মন্তব্য করেন তিনি।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, এই বইমেলাটি আগে ছিল সার্বজনীন। কিন্তু এখন একুশে বইমেলা আওয়ামী বইমেলায় পরিণত হয়েছে।

তিনি বলেন, মেলার সর্বজনগ্রাহ্য সম্ভ্রম ক্ষুন্ন করা হয়েছে। এই বইমেলার বিভিন্ন স্টল আওয়ামীকরণে সজ্জিত করা হয়েছে। মেলায় ঢুকলেই মনে হয়, এটি যেন আওয়ামী লীগের কাউন্সিল অধিবেশন। দুঃশাসনের দুরন্ত প্রভাব পড়েছে চলমান একুশে বইমেলায়। এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

বিএনপির এই নেতা বলেন, দেশে চারদিকে লুটপাটের মহামারী চলছে। সরকারের লোকজন যে যেভাবে পারছে বেপরোয়াভাবে জনগণের অর্থ সম্পদ লুটে নিচ্ছে। দেশের মানুষ ফৌত হয়ে গেছে।

তিনি বলেন, আওয়ামী লুটপাটের বড় খাত কেবল শেয়ার বাজারে সীমাবদ্ধ নেই। একটির পর একটি ব্যাংক দেউলিয়া করার পর এখন জনগণের পকেট কাটতে সরকার আবার নতুন ব্যাংক অনুমোদন দিচ্ছে। ব্যাংকে ব্যাংকে সয়লাব এখন দেশ।

রিজভী বলেন, নতুন করে গত রোববার আওয়ামী লীগের একজন নেতার বেঙ্গল কমার্শিয়াল ব্যাংকের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এই ব্যাংকগুলো করা হচ্ছে জনগণের পকেট কাটার জন্য। একদিকে যেমন ঋণ নিয়ে চলছে সরকার, পাশাপাশি বিভিন্ন স্বায়ত্বশাসিত এবং সেক্টর কর্পোরেশনের উদ্ধৃত্ত অর্থ জোর করে তুলে নিয়ে যাচ্ছে সরকার। এর পাশাপাশি শুরু হয়েছে ব্যাংক নিয়ে নতুন খেলা। অর্থ সম্পদ গচ্ছিত রাখার ব্যাংক এখন রীতিমত আতংকে পরিণত হচ্ছে। অন্যদিকে নতুন করে আইন বানানো হচ্ছে- কোনো ব্যাংক দেউলিয়া হয়ে গেলে আমানতকারীর যত আমানতই থাকুক না কেনো, মাত্র ১ লক্ষ টাকা বীমার টাকা দেওয়া হবে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে এখন সরকারের রাঘব-বোয়ালদের জন্য লুটপাটের সব অর্গল উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়েছে, যে যেভাবে পারছে লুটে নিচ্ছে। কোনো রকমের যাচাই-বাছাই ছাড়া এক ব্যাংকের পরিচালকরা আরেক ব্যাংক থেকে ঋণ নিচ্ছেন ইচ্ছামতো। নামমাত্র ব্যবসায়ী, ব্যাংক পরিচালক, ব্যাংকের শীর্ষ কর্মকর্তা ও আওয়ামী রাজনীতিকের সংঘবদ্ধ চক্র সুকৌশলে লুট করছে ব্যাংকের টাকা।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবুল খায়ের ভূঁইয়া, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকনসহ কেন্দ্রীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন