কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা শনিবার

কৃষি বিষয়ক সাতটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা আগামী ৩০ নভেম্বর শনিবার অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

এবারের সমন্বিত পরীক্ষার বিষয়টি লিড দিচ্ছে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বাকৃবি)।

এ বিষয়ে বাকৃবির ভিসি অধ্যাপক ড. লুৎফুল হাসান বলেন, ভর্তি পরীক্ষার বিজ্ঞপ্তিতে প্রকাশিত নির্দেশাবলী অনুযায়ী যথাসময়ে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। পরীক্ষা পেছানোর আপাতত কোনো সম্ভাবনা নেই।

এ বিষয়ে ২৬ নভেম্বর গুচ্ছ পদ্ধতি ভর্তি পরীক্ষা কমিটির আহ্বায়ক প্রফেসর ড. আখতার হোসেন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পরীক্ষা যথারীতি ৩০ নভেম্বর ২০১৯ অনুষ্ঠিত হবে। ভর্তি পরীক্ষার কেন্দ্র ও আসন বিন্যাসসহ সব প্রস্তুতি ইতিমধ্যে সম্পন্ন করা হয়েছে।

এ দিকে বাকৃবি ভর্তি পরীক্ষার্থীদের সিট প্লান প্রকাশ করেছে। ১৬টি অঞ্চলের ২৩৭টি কক্ষে মোট ১২ হাজার ৬৭৬ জন পরীক্ষার্থীর আসন বিন্যাস প্রকাশ করা হয়েছে।

অংশগ্রহণ করতে না পারা শিক্ষার্থীদের টাকা ফেরত দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভর্তি কমিটি।

এ বিষয়ে বাকৃবি ভিসি বলেন, পরীক্ষা না দিতে পারা আবেদনকারীদের টাকা ফেরত দেয়া হবে। বাছাই প্রক্রিয়া বাবদ আংশিক খরচ কেটে নিয়ে অবশিষ্ট টাকা ফেরত দেয়া হবে।

উল্লেখ্য, ২০১৯-২০ স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষার জন্য ৭৪ হাজার ৪৫৬টি আবেদন জমা পড়ে। ভর্তি নির্দেশিকা অনুযায়ী মোট আসনের ১০ গুণ অর্থাৎ ৩৫ হাজার ৫৫০ জন শিক্ষার্থীকে পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ দেয়ায় বাদ পড়ে ৩৮ হাজার ৯৫৬ জন আবেদনকারী।

দেশের সাতটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষে কৃষিবিজ্ঞান বিষয়ে আগামী ৩০ নভেম্বর অনুষ্ঠিতব্য সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় নির্ধারিত আসনের ১০ গুণের বেশি শিক্ষার্থী অংশ নিতে পারবে না- এমন শর্ত কেন অবৈধ ও বেআইনি ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করা হয়।

শিক্ষা সচিব, সাতটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিসহ ১১ বিবাদীকে চার সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।
বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ গত রোববার এ রুল জারি করেন।

শিক্ষার্থীদের পক্ষে মুশফিকা আফরীন তৃষা ও তানভীর আনজুম আলভীর করা এক রিট আবেদনে এ আদেশ দেন আদালত।

রিট আবেদনকারীপক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট ফয়জুল্লাহ ফয়েজ ও ব্যারিস্টার সালেহ আকরাম।
রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত তালুকদার।

আরও পড়ুন