কয়েক হাজার ভিডিও ব্লক করতে চলেছে ইউটিউব

সারাবিশ্বে স্যোশাল মিডিয়ার মধ্যে ইউটিউব অন্যতম। এর মাধ্যমে মুহূর্তে পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে পৌঁছে যাচ্ছে ছবি-ভিডিও। আর এই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলিকে হাতিয়ার করেই সমাজে বিদ্বেষ ছড়াচ্ছে বিচ্ছিন্নতাবাদীরা। পাশ্ববর্তী দেশ ভারতে সন্ত্রাসবাদীদের পছন্দের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের মধ্যে উপরের সারিতে রয়েছে ইউটিউব। উগ্রপন্থা ও বিদ্বেষ বন্ধ করতে নতুন নিয়মাবলী তৈরি করেছে ইউটিউব। এতে মানুষে মানুষে বিভেদ সৃষ্টি করে এমন সমস্ত ভিডিও নিষিদ্ধ করা হবে বলে বুধবার এক ব্লগ পোস্টে ইউটিউব কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

সন্ত্রাসবাদীদের পছন্দের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের মধ্যে উপরের সারিতে রয়েছে ইউটিউব। কারণ, ইউটিউবে অতি সহজেই পৌঁছে দেওয়া যায় ভিডিও বার্তা। তাই ইউটিউবকে ব্যবহার করেই জেহাদের বার্তা ছড়ায় বিচ্ছিন্নতাবাদীরা। এবার সেই কাজটি আটকে দিতে উদ্যোগ নিচ্ছে ইউটিউব কর্তৃপক্ষ। নেওয়া হচ্ছে একাধিক পদক্ষেপ।

এ বিষয়ে ইউটিউব জানিয়েছে, তাদের সাইট থেকে সমস্ত বিদ্বেষমূলক বা হিংসাত্মক ভিডিও সরিয়ে দেওয়া হবে। যে সমস্ত চ্যানেল এই ভিডিওগুলি ছড়ায় সেগুলিকেও বন্ধ করার পরিকল্পনা করেছে ইউটিউব কর্তৃপক্ষ। গুগলের মালিকানাধীন সংস্থাটি জানাচ্ছে, ‘বিদ্বেষ, হয়রানি, বৈষম্য ও হিংসা উসকে দেওয়ার জন্য আমাদের প্ল্যাটফর্মের ব্যবহার বন্ধ করা আমাদের দায়িত্ব।’

গুগল এর নেতৃত্বাধীন সোশ্যাল মিডিয়া ওয়েবসাইটটির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, উগ্রপন্থা বা বিদ্বেষ ছড়াতে পারে এমন কয়েক হাজার ভিডিও ও চ্যানেল সরিয়ে নেওয়ার চিন্তা ভাবনা করছে সংস্থাটি। এই লক্ষ্যে ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে কাজ।

শুধু তাই নয়, এরপর থেকে যদি কোনও জঙ্গি সংগঠন কোনও হামলার দায় স্বীকার করে ফেসবুকে পোস্ট করে, তাদের ভিডিও-ও সরিয়ে দেওয়া হবে বলে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।উল্লেখ্য, ইতিমধ্যেই ফেসবুক এবং হোয়াটসঅ্যাপের তরফে সন্ত্রাস এবং ভুয়ো খবর রুখতে একাধিক বন্দোবস্ত করা হয়েছে। বাকি ছিল ইউটিউব, এবার তারাও কার্যকরী পদক্ষেপ করতে চলেছে।

আরও পড়ুন