গঙ্গায় স্নান করলেই কাশ্মীরে নিহত শহিদদের রক্ত ধুয়ে যাবে না

ভারত অধিকৃত জম্মু-কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে সোমবার সকাল থেকেই উত্তাল ছিল সংসদ। দিনভর নাটকের পর প্রায় ৬৯ বছরের ইতিহাস বদলে ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত নিল মোদী সরকার।তুলে দেওয়া হল সংবিধানের৩৭০ ধারা। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের পাশাপাশি আজ পাক সংবাদমাধ্যমেও দিনভর শিরোনামে ৩৭০ ধারা। শুধু পাক সংবাদমাধ্যমই নয়, কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে মুখ খুলেছেন পাক-তারকারাও।

 

এদিকে পাকিস্তানি অভিনেতা শান শাহিদ ৪ অগস্ট টুইটারে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর গঙ্গাস্নানের একটি ছবি পোস্ট করে লেখেন, ‘গঙ্গায় স্নান করলেই কাশ্মীরে নিহত শহিদদের রক্ত ধুয়ে যাবে না’। তিনি আরও লেখেন, ‘আমার পরিবার ১৯৭১থেকে ভারতের নৃশংসতার বিরুদ্ধে কাশ্মীরিদের মুক্ত হওয়ার জন্য আহ্বান জানাচ্ছে।’

অন্যদিকে আরেক পাকিস্তানি পরিচালক এবং অভিনেতা হামজা আলি আব্বাসি-ও নিজের টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে লেখেন, ‘মোদী সরকারের এই একটি সিদ্ধান্ত কাশ্মীরের সমস্ত রাজনৈতিক দলকে ভারতের বিরুদ্ধে একত্রিত করেছে। পাকিস্তানের প্রতিটি মানুষ আজ বিক্ষুব্ধ। ভারত তার সমস্ত মানবিক মূল্যবোধ হারিয়ে ফেলেছে’।

‘রইস’ সিনেমাখ্যাত পাকিস্তানি অভিনেত্রী মাহিরা খানও ৫ অগস্ট তার টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে লেখেন, ‘ভূস্বর্গ জ্বলছে। নিষ্পাপ মানুষ মারা যাচ্ছেন।’ এরপর হ্যাশট্যাগ দিয়ে মাহিরা লেখেন, ‘আমি কাশ্মীরের সঙ্গে আছি’। মাহিরার এই টুইট নিয়ে তৎক্ষণাৎ টুইটারেত্তিরা ভাগ হয়ে যান।কেউ কেউ যেমন তাকে সমর্থনও করেন আবার কেউ কেউ তাকে ভারতের ব্যাপারে নাক না গলানোর হুঁশিয়ারি দেন। একজন আবার লেখেন, চিনা মুসলিমদের দিকেও যেন মাহিরা নজর দেন। তাদের প্রতি অবিচারের বেলায় তিনি চুপ থাকেন কেন?

You might also like