চট্টগ্রাম সিটি ভোটে অভিযোগের পাহাড়

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচন ঘিরে মেয়র, সংরক্ষিত ও সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থীদের বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ উঠেছে। পোস্টার-ব্যানার ছেঁড়া, প্রতিপক্ষকে হুমকি, গাড়ি ভাঙচুর, প্রচারণায় বাধা, শ্লীলতাহানি, ছিনতাই ও কর্মীদের ওপর হামলার মতো অর্ধশতাধিক অভিযোগ জমা পড়েছে নির্বাচন কমিশনে (ইসি)। এর মধ্যে ২৭টির নিষ্পত্তি হয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রার্থীসহ নির্বাচনসংশ্লিষ্টরা বলেন, ইসি চসিক নির্বাচন নিয়ে দায়সারা ভূমিকা পালন করছে। সরকারি এত বড় একটা মহড়া নিয়ে আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন এমপি বৈঠক  করলেন। পত্রিকায় বিজ্ঞাপন ও নিউজ হয়েছে। তাও দেখেনি কমিশন। এ ছাড়া কর্মীদের মারধর, পোস্টার ছেঁড়াসহ নানা বিষয়ে তদন্ত হচ্ছে না।

পাহাড়তলীর দায়িত্বরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রেজওয়ানা আফরিন বলেন, ‘আমার এলাকায় দুটি অভিযোগ পেয়েছি। এগুলোর সমাধান হয়েছে। আচরণবিধির বিষয়ে প্রতিনিয়ত মনিটরিং করা হচ্ছে।’

 

নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, গত রাতে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ইসিতে ৫৩টি অভিযোগ জমা পড়েছে। এর মধ্যে ২৭টির নিষ্পত্তি হয়েছে। অভিযোগকারীর মধ্যে রয়েছেন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম চৌধুরী, বিএনপির মেয়র প্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন, ৬ নম্বর পূর্ব ষোলশহর ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের কাউন্সিলর প্রার্থী মো. আশরাফুল আলম, ১১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী নুরুল ইসলাম, ১৭ নম্বর পশ্চিম বাকলিয়ার সোয়েব খান, ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত আসনের মনোয়ারা বেগম, চট্টগ্রাম নাগরিক ঐক্য পরিষদ, ১১ নম্বর দক্ষিণ কাট্টলির কাউন্সিলর প্রার্থী মোরশেদ আকতার চৌধুরীসহ ৫৩ জন। নিষ্পত্তি করা ঘটনাগুলোর মধ্যে বেশির ভাগ হচ্ছে তুচ্ছ বিষয়। ছোট ঘটনাকে বড় করে উত্থাপন করা হয়েছে। যা সরেজমিন তদন্তে ওঠে এসেছে। তাছাড়া একাধিক অভিযোগ ভিত্তিহীন বলেও প্রতীয়মান হয়েছে।

 

আরও পড়ুন