চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রীকে গণধর্ষণ, গ্রেফতার ৩

বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলায় চতুর্থ শ্রেণির এক মাদ্রাসা ছাত্রীকে গণধর্ষণের অভিযোগে তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার ভোরে উপজেলার তালোড়া সঞ্জারবাড়ি এলাকায় নিজ নিজ বাড়ি থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

এর আগে ওই মাদ্রাসা ছাত্রীর মা দুপচাঁচিয়া থানায় গ্রেফতার ব্যক্তিরাসহ আরও ৩-৪ জনের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন।

গ্রেফতার ব্যক্তিরা হলেন-বগুড়ার দুপচাঁচিয়ার সঞ্জারবাড়ির নাসির উদ্দিনের ছেলে পান্না মিয়া (৩৫), মৃত ইব্রাহিম আলী ওরফে বাটুর ছেলে ফেরদৌস আলী (৫০) ও মৃত সিরাজ মণ্ডলের ছেলে দুদু মণ্ডল (৪০)।

 

জানা যায়, চতুর্থ শ্রেণির ওই ছাত্রীকে (১৩) নিয়ে তার মা নিজ বাড়িতে থাকেন। বাদী অন্যের বাড়িতে কাজ করে সংসার চালান। সেই সুযোগে গ্রেফতার হওয়া আসামিরা বিভিন্ন সময়ে তার মেয়েকে প্রলোভন দেখিয়ে বিড়ি, সিগারেট, গাঁজা সেবন করা শেখায়। তার মেয়ে ছোট হওয়ায় তাদের কথায় প্রলোভিত হয়ে এসব সেবন করতে থাকে। বিষয়টি বাদী জানার পর আসামিদের নিষেধ করে। কিন্তু তারা তাকে বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি দেখান। একসময় তিনি বাড়িতে না থাকায় ওই তিনজন তার মেয়েকে ধর্ষণ করে।

এর আগে, গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে বাদী তার মেয়েকে বাড়িতে না পেয়ে খোঁজাখুঁজি করতে থাকেন। একপর্যায়ে পরদিন বুধবার তার মেয়ে বাড়িতে ফিরে আসে। এসময় মেয়ে জানায়, বিভিন্নভাবে প্রলোভন দেখিয়ে ওই তিনজন তাকে দুপচাঁচিয়ার সরঞ্জাবাড়ির তিনমাথা মোড়ের পশ্চিম পাশের একটি চাতালে নিয়ে যায়। সেখানে ভোররাত পর্যন্ত তাকে ধর্ষণ করে।

দুপচাঁচিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ জানান, মামলা দায়েরের পর তাদের একটি দল অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করে। পরে তাদের আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন