নবদ্বীপ ছেড়ে দিয়ে দেখিয়েছেন, সেটি খুবই সহজ কাজ

ভারতীয় বংশোদ্ভূত নবদ্বীপ বাইন আগামী নির্বাচনে আর প্রার্থী হবেন না। সেটা তিনি প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোকে জানিয়ে দিয়েছেন। একই সঙ্গে তিনি এখনই মন্ত্রীসভা থেকেও সরে দাড়াচ্ছেন। ফলে প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোকে মন্ত্রীসভায় খানিকটা রদবদল করতে হলো।

২৬ বছর বয়সে কানাডার এমপি হয়েছিলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত নবদ্বীপ। এখন তার বয়স মাত্র ৪৩। এই বয়সে ফেডারেল সরকারের কেবিনেট মন্ত্রীত্ব ছেড়ে দিয়ে রাজনীতি থেকে সরে যাচ্ছেন কেন তিনি? নবদ্বীপের পরিষ্কার জবাব, ১৭টা বছর ধরে আমার পরিবার আমার জন্য স্যাক্রিফাইস করে যাচ্ছে। আমি এখন তাদের সাথে সময় কাটাতে চাই। তিনি বলেন, আমার গ্রেড ফাইভ আর এইটে পড়ুয়া দুই মেয়েই আমাকে তাদের কাছে চায়। আমিও তাদের কাছে চাই। আমার কাছে ওরা, আমার পরিবার হচ্ছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।সন্তানের সঙ্গে, পরিবারের সঙ্গে বেশি বেশি সময় কাটাতে কেবিনেট মন্ত্রীর পদ ছেড়ে দেয়া যায়? নবদ্বীপ ছেড়ে দিয়ে দেখিয়েছেন, সেটি খুবই সহজ কাজ।

ডোনাল্ড ট্রাম্প যখন আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হন, তখনো ট্রুডোকে মন্ত্রীসভায় পরিবর্তন আনতে হয়েছিলো। প্রতিবেশি দেশের নতুন আনপ্রেডিকটেবল’ সরকারের সঙ্গে ঠিক মতো দেন দরবার করার প্রক্রিয়াটাকে নিরবচ্ছিন্ন রাখতেই নিজের মন্ত্রীসভাকে ঢেলে সাজাতে হয় কানাডার।
জো বাইডেনের জন্য কি ট্রুডোকে তার মন্ত্রী সভায় কোনো বাড়তি পদক্ষেপ নিতে হচ্ছে? এখন পর্যন্ত উত্তর হচ্ছে- না। ট্রাম্পের জন্য মন্ত্রীসভার যে সেট আপ ছিলো- বাইডেনের জন্য সেটাই  থাকছে। তবে নবদ্বীপের স্বেচ্ছায় সরে যাওয়ার সুযোগটা নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী ট্রুডো। তিনি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পরিবর্তন এনেছেন।

 

(লেখকের ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

আরও পড়ুন