নরসিংদীতে নতুন ২২ জনসহ মোট করোনায় আক্রান্ত ১৩৬১

নরসিংদীতে নতুন ২২ জনসহ মোট করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ১৩৬১ জন। সর্বশেষ আজ সোমবার রাত সারে ১১ টা পর্যন্ত ২২ জন আক্রান্তের খবর পাওয়া গেছে।

নতুন আক্রান্তদের মাঝে নরসিংদী সদর উপজেলায়- ১২ জন, শিবপুর- ২ জন, মনোহরদী- ১ জন, পলাশ- ১ জন, বেলাব- ৪ জন ও রায়পুরা উপজেলায়- ২ জন। সোমবার (২৯ জুন) পর্যন্ত জেলায় মোট করোনা পজিটিভ রোগী ১৩৬১ জন।

এদের মধ্যে নরসিংদী সদর উপজেলায়- ৮৭৪ জন, শিবপুর- ১২৭ জন, পলাশ- ১১৩ জন, মনোহরদী- ৭৩ জন, বেলাব- ৭৫ জন, রায়পুরা উপজেলায়- ৯৭ জন। সুস্থ্য হয়ে আইসোলেশন মুক্ত হয়েছেন- ৮৮৭ জন।

হাসপাতাল আইসোলেশনে আছেন ২৩ জন। হোম আইসোলেশনে রয়েছেন ৪২০ জন। জেলা থেকে মোট স্যাম্পল সংগ্রহ করা হয়েছে ৬৯০৮ জনের। রেজাল্ট পাওয়া গেছে ৬৫৫৮ টি নমুনার। ৩৫০ টি নমুনার ফলাফল বাকী রয়েছে। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন- ৩১ জন।

এদের মধ্যে নরসিংদী সদর উপজেলায়- ২০ জন, পলাশ- ১ জন, শিবপুর- ১ জন, রায়পুরা- ৩ জন, মনোহরদী- ২ জন ও বেলাব উপজেলায়- ৪ জনের মৃত্যু হয়। নরসিংদী জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এছাড়া করোনা আক্রান্ত হয়ে আরো ৩ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে। এ নিয়ে মৃত্যুর সংখ্যা দাড়িয়েছে ৩৪ জনে। শনিবার (২৭ জুন) নরসিংদী সদর উপজেলার ছোট মাধবদী গ্রামের সবিতা ভৌমিক (৪৪) করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন।

শনিবার (২৭ জুন) নরসিংদী সদর উপজেলার সংগীতা মোড় এলাকার জাহেদা বেগম (৫১) করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। বৃহস্পতিবার (২৫ জুন) নরসিংদী শহরের ব্রাহ্মন্দী মহল্লার নজরুল ইসলাম (৭২) করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। সোমবার (২২ জুন) নরসিংদী শহরের বাসাইল মহল্লার নাহিদা (২০) করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। শনিবার (২০ জুন) বেলাব উপজেলার মাজলুল হক (৭০) করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। বৃহস্পতিবার (১৮ জুন ) নরসিংদী সদর উপজেলার মাধবদী দড়িপাড়া এলাকার বাবুল মিয়া (৫২) করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন।

বৃহস্পতিবার (১৮ জুন ) নরসিংদী সদর উপজেলার চিনিশপুর এলাকার রাবেয়া বেগম (৫৫) করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। বুধবার (১৭ জুন) মনোহরদী উপজেলার বাসিন্দা মোজাম্মেল হক (৪৬) করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। সোমবার (১৫ জুন) নরসিংদী সদর উপজেলার বাসিন্দা খোদেজা বেগম (৬৩) করোনা আক্রান্ত হয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন। তিনি ডায়াবেটিসের সমস্যায় ভুগছিলেন।

সোমবার (১৫ জুন) নরসিংদী সিভিল সার্জন অফিসে কর্মরত পরিসংখ্যানবিদ আবদুল মতিন (৪৫) করোনা আক্রান্ত হয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসারত অবস্থায় সকাল ৮ টায় মৃত্যুবরণ করেন। তিনি দীর্ঘদিন যাবত ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপে ভুগছিলেন। তিনি নরসিংদী শহরের বাসাইল এলাকার বসবাস করতেন। রবিবার (১৪ জুন) শিবপুর আশরাফপুর গ্রামের মিনারুল হক খান (৬৪) করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। তিনি লিভারের সমস্যায় ভুগছিলেন।

বৃহস্পতিবার (১১ জুন) নরসিংদী সদর উপজেলার বাগহাটা এলাকার নূর মোহাম্মদ (৫০) করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। বুধবার (১০ জুন) মনোহরদী উপজেলার করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আশরাফ হোসেন খান (৭০) রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন। তিনি ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ ও কিডনিজনিত রোগে আক্রান্ত ছিলেন।

বুধবার (১০ জুন) সন্ধায়, রায়পুরা লোচনপুরা এলাকার ফিরুজ মিয়া (৫৫) করোনা আক্রান্ত হয়ে ঢাকা সিএমএইচ এ মৃত্যুবরণ করেন। বুধবার (১০ জুন) দুপুরে নরসিংদী শহরের বাসাইল রেল গেইট এলাকার রেহানা বেগম (৬০) করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। মঙ্গলবার (৯জুন) নরসিংদী সদর উপজেলার হাজীপুর এলাকার আবদুর রউফ দিপ্তি (৭১) করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন।

সোমবার (৮ জুন) রাতে বেলাব উপজেলার করোনায় আক্রান্ত হয়ে ফজলু মিয়া (৬০) মৃত্যুবরন করেন। তিনি ডায়াবেটিসেও আক্রান্ত ছিলেন। সোমবার (৮ জুন) বেলাব উপজেলার জায়েদুল হক ভূইয়া (৬০) করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। রবিবার (৭ জুন) বিকেলে নরসিংদী শহরের রাঙ্গামাটি এলাকার কাজল রাণী সাহা (৫৮) করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। তাঁর ডায়াবেটিস জনিত সমস্যা ছিল।

শুক্রবার (৫ জুন) রায়পুরা উপজেলার আদিয়াবাদ এলাকার নুরুল ইসলাম (৫৫) করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। তিনি হার্টের সমস্যায় ভুগছিলেন। বুধবার (৩ জুন) সকালে নরসিংদী শহরের বাসাইল মহল্লার নূরে আলম (৩৮) করোনা আক্রান্ত হয়ে নরসিংদী কোভিড হাসপাতাল (জেলা হাসপাতালে) মৃত্যুবরন করেন। রবিবার (৩১ মে) মাধবদী আনন্দী গ্রামের আব্দুল কাদের (৬৫) করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। তার ডায়াবেটিস ও হার্টের সমস্যা ছিল।

শনিবার (৩০ মে) নরসিংদী সদর উপজেলার শেখেরচর ফুলতলা গ্রামের রিতা পাল (৫৯) করোনা আক্রান্ত হয়ে দুপুরে মৃত্যুবরণ করেন। তাঁর হাইপারটেনশান জনিত সমস্যা ছিল। শুক্রবার (২৯ মে) সকাল ১০ টায় করোনা আক্রান্ত হয়ে রায়পুরা উপজেলার মুছাপুর তালুককান্দী গ্রামের আফিফা বেগম (৫৮) মৃত্যুবরণ করেন। তাঁর এ্যজমা, হাইপারটেনশান এবং কিডনি জনিত সমস্যা ছিল। মঙ্গলবার (২৬ মে) নরসিংদী শহর এলাকার দিলীপ (৫৬) করোনা উপসর্গ নিয়ে ১০০ শয্যা বিশিষ্ট জেলা হাসপাতালে (জেলা কোভিড হাসপাতাল) মৃত্যুবরণ করেন। ২৮ মে তাঁর নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে।

সোমবার (২৫ মে) বেলাবো উপজেলার মোহাম্মদ ফয়েজ উদ্দিন (৪৫) করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যুবরণ করেন। পরবর্তীতে তার নমুনা পরীক্ষার রিপোর্টে পজিটিভ ফলাফল আসে। মঙ্গলবার (১৯ মে) মাধবদী এলাকার শংকর ধর (৬০) নামে একজন আনুমানিক বিকেল ৫ টার দিকে করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরন করেন। সে করোনা পজেটিভ রোগী ছিল। করোনা আক্রান্ত হয়ে-সোমবার (১১ মে) সকালে মাধবদী এলাকার চাঁন মিয়া (৬৫) তার নিজ বাড়ীতে মৃত্যুবরণ করেন। তার রিপোর্ট পজেটিভ আসে। শুক্রবার (৮ মে) রাতে নরসিংদী শহরের বৌয়াকুড় মহল্লায় নিখিল (৫০) নামে এক ব্যাক্তি করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বরন করেন। মৃত্যুর পর তার পজেটিভ রিপোর্ট আসে।

বৃহস্পতিবার (৩০ এপ্রিল) রাতে পলাশ উপজেলার জিনারদী ইউনিয়নের মাঝেরচর এলাকার নূর মোহাম্মদ (৫০) নিজ বাড়িতে মৃত্যুবরণ করেন। বৃহস্পতিবার (২৩ এপ্রিল) নরসিংদী শহরের ভাগদী মহল্লার আমজাদ হোসেন (৪৮) সন্ধ্যা ৭ টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় কুয়েত মৈত্রী হাসপাতাল এর আইসিউতে মৃত্যুবরন করেন। এছাড়া সোমবার (১৮ মে) বিকেলে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধিন অবস্থায় হাজী শরীফ হোসেন মুক্তার (৫৭) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। তিনি সদর উপজেলার মাধবদী নুরালাপুর গ্রামের বাসিন্দা।

নরসিংদী সদর উপজেলা কুইক রেসপন্স টিমের সভাপতি ও সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ শাহ আলম মিয়া এ তথ্য নিশ্চিত করেন। বুধবার (১৩ মে) বেলাবো উপজেলার সররাবাদ হাজী বাড়ির আতাউর রহমান (কৃষি ব্যাংকের ম্যানেজার) করোনায় আক্রান্ত হয়ে ঢাকা কুয়েত মৈত্রি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

বিষয়টি নিশ্চিত করেন বেলাবো থানা পুলিশ। শনিবার (১৮ এপ্রিল) ঢাকার কুর্মিটোলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরন করেন আমির হোসেন। আমির হোসেন (৪৫) পাইকারচর ইউনিয়নের পুরানচর গ্রামের মৃত হানিফ প্রধান এর ছেলে। আমির হোসেন এর শরীরে করোনা উপসর্গ দেখা দিলে গত ১৭ এপ্রিল জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে তিনি নিজ উদ্যোগে ঢাকা কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল ভর্তি হন।সেখানে পরীক্ষা করা হলে তার করোনা পজেটিভ রিজাল্ট আসে।

 

আরও পড়ুন