নিরাপত্তা আমাদের কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ: সেক্টর কমান্ডার

পঞ্চগড়ের বাংলাবান্ধা বিওপির আয়োজনে সমন্বয় সভায় পঞ্চগড় ঠাকুরগাঁও সেক্টর কমান্ডার (বিজিবি) শামছুল আরেফিন প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেছেন নিরাপত্তা আমাদের কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন তবে অযথা হয়রানি করা হবেনা। পঞ্চগড়ের বাংলাবান্ধায় চোরাচালান, মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ এবং অবৈধ অনুপ্রবেশ বন্ধে প্রশিক্ষিত কুকুরের সহায়তা নেয়া হবে। বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ এই উদ্যোগ নিয়েছে।

কুকুরদের জন্য বাংলাবান্ধা বিওপিতে ঘর নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। রবিবার দুপুরে আইসিপি ও এলসিপির বিদ্যমান সমস্যা ও সফলতা অর্জনে করণীয় বিষয়ক সেমিনারে এসব তথ্য জানান বিজিবির ঠাকুরগাঁও সেক্টর কমান্ডার কর্নেল মোহাম্মদ শামছুল আরেফীন। এ ছাড়া ঝাড়ুয়া পাড়া এলাকায় আধুনিক মান সম্পন্ন নতুন একটি ক্যাম্প স্থাপন করা হবে। এই ক্যাম্প বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর এবং ইমিগ্রেশনকে সহায়তা করবে।

পঞ্চগড় ১৮ বিজিবি ব্যাটালিয় আয়োজনে সেমিনারে বিজিবি সদস্য ছাড়াও বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর, ইমিগ্রেশন পুলিশ ও কাস্টমসের প্রতিনিধি সহ গণমাধ্যমকর্মীরা অংশ নেন। সেমিনারে বক্তব্য রাখেন, পঞ্চগড়-১৮ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে কর্নেল খন্দকার আনিসুর রহমান, বাংলাবান্ধা স্থল বন্দরের রাজস্ব কর্মকর্তা ইছাহক আলী, স্থলবন্দও ইমিগ্রেশনের ওসি ইজারউদ্দীন, বাংলাবান্ধা ল্যান্ডপোর্ট লিমিটেডের ব্যবস্থাপক মামুন সোবহান।

এ সময় বক্তারা জানান সীমান্তে চোরাচালান রোধ, মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ, অবৈধ অনুপ্রবেশ বন্ধসহ বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরে বিদেশ গামীদের যাতায়াত সহজতর করা সহ বিজিবির সেবার মান আরও বৃদ্ধি করতে সমন্বিত ভাবে কাজ করার উপর জোর দেন। বাংলাবান্ধা জিরো পয়েন্টে সিসিক্যামেরা স্থাপন, বডি ও ব্যাগ স্কেনার স্থাপন ও প্রশিক্ষিত কুকুরের ব্যবহার সহআধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে বিজিবির সেবা কার্যক্রম শিগগিরই চালু করা হবে বলেও বিজিবির পক্ষ থেকে ঘোষণা দেয়া হয়।

এতে যাত্রীদের হয়রানি যেমন কমবে তেমনি অপরাধ ও চোরাচালানও রোধকরা সম্ভব হবে বলেও মনে করেন তারা। পরে স্থলবন্দর সীমান্ত দিয়ে কিভাবে ব্যবহৃত জিনিস পত্রের সাথে চোরা চালান হয়তা সেমিনাওে হাতে কলমে উপস্থাপন করেন বিজিবি সদস্যরা।

আরও পড়ুন