পরীক্ষা স্থগিত, দুশ্চিন্তায় রংপুরের শিক্ষার্থীরা

রংপুর নগরীর মুন্সিপাড়া এলাকার বাসিন্দা শাহজাহান হোসেন রতনের ছেলে ফাহিম হোসেন এবার এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন। প্রশ্নপত্র ফাঁসের কারণে হঠাৎ করে বুধবার দিনাজপুর বোর্ডের পরীক্ষা স্থগিত করেন বোর্ড কর্তৃপক্ষ। এতে হতাশ ফাহিম হোসেন ও তার পরিবার। একাধিকবার পরীক্ষা পিছিয়ে যাওয়ায় ফাহিম হোসেন মত রংপুর বিভাগের ১ লাখ ৬৮ হাজার  এসএসসি পরীক্ষার্থী এবং তাদের অভিভাবকের কপালে দেখা দিয়েছে দুশ্চিন্তার ছাপ।

সূত্রে জানা গেছে, এমনিতে বিভিন্ন কারণে গত বছরের চেয়ে এবার  দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডে পরীক্ষার্থী কমেছে ২২ হাজারের বেশি। বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থী কমে যাওয়ার কারণ হিসেবে শিক্ষাবিদ ও সচেতন মহল মনে করছেন বাল্য বিয়ে, দারিদ্র্যতা কারণে লেখাপড়া ছেড়ে পরিবারকে সহায়তা করতে অন্যত্র কাজ করাসহ বিভিন্ন কারণে এবার এত শিক্ষার্থী কমে গেছে। এই অবস্থায় নানান কারণে বারবার পরীক্ষা পিছিয়ে যাওয়ায় মারাত্মক নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে শিক্ষার্থীদের মন-মানসিকতায়।

এদিকে বৃহস্পতিবার দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মোঃ কামরুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে জানা গেছে স্থগিত পরীক্ষা আগামী ১০ থেকে ১৩ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে।

অভিভাবক শাহাজান হোসেন রতন বলেন, আমি একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করি। মার্চ মাসে পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু করোনা, বন্যাসহ বিভিন্ন কারণে বারবার পরীক্ষা পিছানো হয়েছে। প্রতিবারই পরীক্ষার আগে প্রাইভেট শিক্ষক নিতে হয়েছে। এতে আর্থিক ব্যয় হওয়ার পাশাপাশি মানসিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। তার মত অনেক অভিভাবকই পরীক্ষা পিছিয়ে যাওয়ায় হতাশ।

দিনাজপুর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক সূত্রে জানা গেছে, এবার রংপুর বিভাগে ১ লাখ ৬৯ হাজার ৭০৭ জন পরীক্ষার্থীর অংশগ্রহণ করার কথা ছিল। প্রথম দিন অংশগ্রহণ করেছে ১ লাখ ৬৮ হাজার ১১ জন। প্রথম দিনে অনুপস্থিত ছিল এক হাজার ৬৯২ জন। গত বছর এসএসসি পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ১ লাখ ৯০ হাজার। বিভিন্ন কারণে গত বছরের চেয়ে চলতি বছর ২২ হাজারে বেশি পরীক্ষার্থী কম অংশগ্রহণ করছে। এটা শিক্ষা সেক্টরে নেতিবাচক প্রভাব বলে মনে করছেন শিক্ষাবিদরা।

আরও পড়ুন