পাখির প্রতি ভালবাসা’ ভালুকার ইউএনওর

ইতি শিকদার, ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি :

পাখির প্রতি ভালবাসার এক দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে চলেছে ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদ কামাল। তাঁর উদ্যোগে “পাখি বাঁচাও, পরিবেশ বাঁচাও” স্লোগানকে সামনে রেখে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন “অভুদ্যয়” এর সহযোগিতায় উপজেলা জুড়ে চলছে পাখির নিরাপদ আবাসন তৈরীর কাজ। উপজেলা ভিবিন্ন স্থানে গাছের ডালে ডালে মাটির হাড়ি বেঁধে পাখির বাসা নির্মাণ করে দেওয়ার এই উদ্যোগটি স্থানীয় ভাবে ব্যাপক প্রশংসা কুড়িয়েছে। গত ৪ই আগষ্ট এই কর্মসূচির অনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসক মো. মিজানুর রহমান।

সূত্রে জানা যায়, পাখির বংশ বিস্তার বৃদ্ধি, জীব বৈচিত্র ও পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় পাখিদের বাঁচাতে এই ব্যতিক্রমী কাজের উদ্যোক্তা ভালুকা উপজেলার নির্বাহী অফিসার মাসুদ কামাল। তাঁর আহ্বানে এ কঠিন কাজটি স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে বাস্তবায়নের দায়িত্ব নিয়েছেন স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন “অভুদ্যয়” এর সদস্যরা। তারা উপজেলার বিভিন্ন স্থানে গাছের ডালে ডালে মাটির হাড়ি বাঁধছেন। সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত পর্যায়ক্রমে উপজেলার একটি পৌরসভা ও ৪টি ইউনিয়নে মোট ৩০ দিনে প্রায় ৬হাজার পাখির নিরাপদ আবাসন স্থাপন কার্যক্রম সম্পন্ন করেছেন তারা। পর্যায়ক্রমে উপজেলার বাকি আরও ৮টি ইউনিয়নেই এ কার্যক্রম পরিচালনা করবেন বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

সমাজসেবায় উৎসাহ মূলক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন “অভ্যুদয়” এর সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার জুনায়েত হোসেন রিপেল জানান, ‘আমাদের বৈচিত্রময় বাংলাদেশ দিন দিন পাখি শূণ্য হয়ে পড়ছে’। পাখি আমাদের সমাজের অত্যান্ত উপকারী একটি জীব। কিন্তু এরা সবচেয়ে বেশি অবহেলিত। বিষয়টা আমাদের উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদ কামাল উপলব্ধি করতে পেরেছেন। এটা অত্যান্ত মহৎ একটি উদ্যোগ। সংগঠনটির সভাপতি মো. আসাদুজ্জামান সুমন জানান, ‘আমারা “অভ্যুদয়” এর স্বেচ্ছাসেবীরা অত্যান্ত আনন্দের সাথেই কাজটি করছি। পাখির জন্য কিছু করতে পেরে নিজেদেরও খুব গর্বিত মনে করছি। ইউএনও মাসুদ কামাল এত ব্যাস্ততার মাঝেও প্রতিনিয়ত আমাদের খোঁজখবর নিচ্ছেন ও দিক নির্দেশনা দিচ্ছেন’।

স্থানীয় শিক্ষক ও সমাজকর্মী শফিকুল ইসলাম খাঁন জানান, ‘আমাদের দেশের পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় পাখির গুরুত্ব অপরিশীম। কিন্তু এ প্রাণীটি অবেহেলিত। এত বৃহৎ পরিশরে মহৎ এ উদ্যোগের উদ্যোক্তা ইউএনও মাসুদ কামাল ও অভ্যুদয়ের স্বেচ্ছাবেসীদের আমি অন্তরের অন্তস্থল থেকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি’। ব্যতিক্রমী এ কাজের উদ্যোক্তা ভালুকা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদ কামাল জানান, ‘দিন দিন আমাদের দেশের বন জঙ্গল মারাকত্ব ভাবে উজার হচ্ছে, এতে দেশ দিন দিন পাখি শূণ্য হয়ে পড়ছে। পাখির বংশ বিস্তার বৃদ্ধি, জীববৈচিত্র ও পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করা আমাদের সকলের দায়িত্ব ও কর্তব্য। পাখি আমাদের জন্য উপকারী হলেও অবহেলিত একটি জীব। তাই গোটা উপজেলার জঙ্গলে জঙ্গলে ও নির্জন স্থানে পাখিদের নিরাপদ আবাসস্থল স্থাপনের পরিকল্পনা করি। আমার আহবানে কঠিন এ কাজটি বাস্তবায়নে সহযোগীতা করছেন স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন “অভুদ্যয়” এর সদস্যরা। সংগঠনটির স্বেচ্ছাসেবীরা গত ৪ আগষ্ট থেকে আন্তরিক ভাবে এ কঠিন কাজটি বাস্তবায়নে নিরলস ভাবে কাজ করে চলেছেন’।

আরও পড়ুন