ফার্স্ট ক্লাস পেলেন চোখ হারানো সেই সিদ্দিকুর

রাজধানীর শাহবাগে পরীক্ষার সময়সূচির দাবিতে আন্দোলনে পুলিশের টিয়ার শেলের আঘাতে দৃষ্টিশক্তি হারানো তিতুমীর সরকারি কলেজের ছাত্র সিদ্দিকুর রহমান অনার্সে প্রথম শ্রেণি পেয়েছেন।

২০১৭ সালের ২০ জুলাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সাত সরকারি কলেজের পরীক্ষার দাবির আন্দোলনে পুলিশের টিয়ারশেলের আঘাতে চোখ হারান সিদ্দিক। পরে শ্রুতি লেখকের সহায়তায় অনার্স তৃতীয় ও চতুর্থ বর্ষের পরীক্ষা দেন।
বুধবার প্রকাশিত অনার্সের চূড়ান্ত রেজাল্টে ফার্স্ট ক্লাস পান সরকারি তিতুমীর কলেজের এই শিক্ষার্থী। বুধবার ওই সাত কলেজের অনার্স (২০১৩-১৪ সেশন) চতুর্থ বর্ষের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের ফলাফল প্রকাশিত হয়। সেখানে সিদ্দিকুর রহমান সিজিপিএ-৩.০৭ পেয়েছেন।

ভালো রেজাল্ট করার পর খুশি মনে সিদ্দিকুর রহমান বলেন, এই রেজাল্টে তৃপ্তি কম, প্রাপ্তি অনেক। রেজাল্ট পেয়ে আফসোস হচ্ছে, যদি চোখে দেখতে পারতাম তবে আরও ভালো করতে পারতাম। চোখ হারিয়ে পরীক্ষাগুলো আমার জন্য অত্যন্ত চ্যালেঞ্জিং ছিল। আমি আমার সাধ্যমতো পরিশ্রম করেছিলাম এবং তা বৃথা যায়নি।

ময়মনসিংহে বেড়ে উঠা সিদ্দিক এসএসসিতে জিপিএ ৫ এবং এইচ এসসিতে জিপিএ ৪.৫০ পান। অর্নাসের ফল প্রকাশের পর এখন তিতুমীর কলেজে তিনি মাস্টার্সে ভর্তি হবেন। ইতোমধ্যে কম্পিউটার ও ব্রেইল প্রশিক্ষণ কোর্স শেষ করেছেন। বর্তমানে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে এসেনশিয়াল ড্রাগস কোম্পানির টেলিফোন অপারেটর পদে চাকরি করছেন সিদ্দিকুর রহমান।

উল্লেখ্য, পরীক্ষার তারিখ ও সময়সূচি ঘোষণা সহ কয়েকটি দাবিতে ২০১৭ সালের ২০ জুলাই শাহবাগে অবস্থান কর্মসূচি পালনকালে পুলিশের ছোড়া টিয়ার শেলে চোখে গুরুতর আহত হন তিতুমীর কলেজছাত্র সিদ্দিকুর রহমান। পরে তাকে জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে ভর্তি করা হলে তাঁর ডান চোখে আলো ফেরার সম্ভাবনা নেই এবং বাম চোখের অবস্থাও ভালো নয় বলে জানান চিকিৎসকেরা। পরে তাকে ভারতের চেন্নাইয়ের শংকর নেত্রালয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়। সেখানে অস্ত্রোপচার করেও সিদ্দিকুরের চোখে আলো ফেরেনি।

আরও পড়ুন