ভোলার ঘটনা নিয়ে ফেসবুকে রঙ ছড়ালে কঠোর ব্যবস্থা

ভোলার ঘটনা নিয়ে শান্তি বিনষ্টের উদ্দেশ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রঙ ছড়ালে সরকার কঠোর ব্যবস্থা নেবে’ বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশের মানুষ ধর্মভীরু, কিন্তু সাম্প্রদায়িক নয়, শান্তিপ্রিয় ও পরমতসহিষ্ণু। একটি মহল দেশের এই শান্তি ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। একজনের ফেসবুক আইডি হ‌্যাক করে ধর্মীয় বিদ্বেষমূলক পোস্ট দিয়ে অশান্তি-হানাহানি সৃষ্টি করাই ছিল তাদের উদ্দেশ্য। এদের চিহ্নিত করে আইনানুগ ব্যবস্থা এবং শান্তি বিনষ্টের উদ্দেশ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ নিয়ে রঙ ছড়ালে কঠোর ব্যবস্থা নেবে সরকার।’

ড. হাছান মাহমুদ আরো বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে দেশে আওয়ামী লীগে যে শুদ্ধি অভিযান চলছে, বিদেশেও এ ধরনের অভিযানের মাধ্যমে দলকে অনুপ্রবেশকারীমুক্ত করা প্রয়োজন। আমি সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগকে শুদ্ধি অভিযান পরিচালনার আহ্বান জানাই।’

অল ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগ প্রেসিডেন্ট এম নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে বৈঠকে সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক শাম্মী আহমেদ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

তথ্যমন্ত্রী ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগ সদস্যবৃন্দের প্রশংসা করে মন্ত্রী বলেন, ‘ইউরোপে সংগঠন করা সহজ নয়। আমি নিজে ইউরোপে ছিলাম। সেখানে আমাদের মতো দিনের হিসাব নয়, ঘণ্টা হিসাব। ঘণ্টা হিসাবে কাজকর্ম করে সংগঠনের জন্য সময় তারাই দিতে পারেন, যারা দলের জন্য অত্যন্ত দরদ অনুভব করেন। সেদিক থেকে অল ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের আমি অভিনন্দন জানাই, ধন্যবাদ জানাই।’

ড. হাছান বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনন্য নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল-মডেল। কবিতায় কুঁড়েঘর আছে, বাস্তবে নেই। খালি পায়ে মানুষ দেখা যায় না। সন্ধ্যায় একমুঠো বাসি ভাত আর কেউ চায় না। আকাশ থেকে হাতিরঝিল দেখলে মনে হয় ইউরোপের কোনো শহরে এসেছি। ১০ বছর আগে যে গ্রাম ছেড়েছে, সে ফিরে এসে নিজগ্রাম আর চিনতে পারে না। এই ভৌত উন্নয়নের পাশাপাশি আমাদের মানবিকভাবে উন্নত জাতি হিসেবে গড়ে উঠতে হবে। এজন্য প্রয়োজন মানবিক মূল্যবোধ, দেশপ্রেম ও মানবপ্রেমের বিকাশ।

আরও পড়ুন