মাধবদীতে জেএমবি’র ফতোয়া নির্ধারক গ্রেফতার

এম,লুৎফর রহমান,নরসিংদী প্রতিনিধি ঃ নরসিংদীর মাধবদী হতে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জেএমবি’র আধ্যাত্মিক নেতা হাফেজ মাওলানা মোঃ আতিক উল্লাহ (৩৬), কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।

এ সময় তাদের নিকট থেকে বিপুল পরিমাণ উগ্রবাদী বই, উগ্রবাদী লিফলেট, ল্যাপটপ ও হার্ডডিস্ক উদ্ধার করা হয়। শনিবার (৩০ নভেম্বর) ভোরে মাধবদী থানার ছোট গদইচর এলাকায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে তাকে গ্রেফতার করা হয়। র‌্যাব ১১ এর মিডিয়া অফিসার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আলেপ উদ্দিন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

আলেপ উদ্দিন জানান, হাফেজ মাওলানা মোঃ আতিক উল্লাহ নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামা’আতুল মুজাহেদীন বাংলাদেশ (জেএমবি) এর একজন ফতোয়া নির্ধারক ও
দাওয়াতী শাখার সমন¡য়কারী। সে ১৯৯৯ সাল হতে ২০০৩ সাল পর্যন্ত নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন হারকাতুল জিহাদ (হুুজি) এর দেশব্যাপী বিভিন্ন কার্যক্রমে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করে।

এ সময় হুজি নেতা আব্দুর রহমান ও সম্প্রতি ঢাকায় গ্রেফতারকৃত আফগান ফেরত মুজাহিদ আতিকুল্লাহ’র কাছে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে। এরপর ২০১৪ সালে আইন শৃংখলা বাহিনীর অভিযানে নিহত এক জেএমবি নেতার মাধ্যমে জেএমবি’তে যোগদান করে। গত ২৭ নভেম্বর বুধবার ফেনী থেকে গ্রেফতারকৃত মোঃ সাইফুল্লাহ, মোঃ মাহাদী ওরফে মেহেদী হাসান ওরফে দাউদ, আজিজুল হক ও ইদ্রিস তার মাধ্যমে জেএমবি’তে যোগদান করেছিল।

আতিকুল্লাহ বাংলাদেশের বিভিন্ন জায়গায় সফরের মাধ্যমে জেএমবি’র কর্মী সংখ্যা বাড়ানোর চেষ্টা করে আসছিল। এর ধারাবাহিকতায় জেএমবি’র কার্যক্রমকে বৃদ্ধি করার জন্য ফেনী’র কয়েকটি জায়গায় গোপন বৈঠকে মিলিত হয়ে নাশকতামূলক কার্যক্রম
করার পরিকল্পনা করেছিল। গ্রেফতারকৃত হাফেজ মাওলানা মোঃ আতিক উল্লাহ র‌্যাব-১১ কর্তৃক দায়েরকৃত ফতুল্লা থানায় সন্ত্রাস বিরোধী (জঙ্গী) মামলার পলাতক আসামী। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত আসামী স্বীকার করে সে দীর্ঘদিন যাবৎ গোপনে সংগঠিত হয়ে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গী সংগঠন জেএমবির কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে এবং নাশকতামূলক কর্মকান্ড করার অপতৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে।

আলেপ উদ্দিন বলেন, আতিকুল্লাহ মূলত ফেইসবুক, টুইটার ও টেলিগ্রাম আইডি’র
মাধ্যমে তার সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিল। সে ঢাকার একটি মাদ্রাসায় শিক্ষকতার পাশাপাশি জেএমবি’র কার্যক্রমে সক্রিয় অংশগ্রহণ করত। সে বর্তমান সরকারকে তাগুত সরকার আখ্যা দিয়ে দেশে খেলাফত প্রতিষ্ঠার জন্য জেএমবি’র সদস্য
সংখ্যা বৃদ্ধিতে দাওয়াতি কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিল।

সে বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন আন্তর্জাতিক উগ্রবাদী সংগঠনের কার্যক্রমকে সমর্থনের পাশাপাশি দেশে জেএমবি’র বিভিন্ন হত্যাকা-কে ইসলামিকভাবে সঠিক প্রমাণ করার জন্য বিভিন্ন হাদিসের অপব্যাখ্যা ও ফতোয়া দিয়ে আসছিল। এর পাশাপাশি সরকারকে কর দেওয়া হারাম ও এটা জিনা’র চেয়েও গুনার কাজ বলে একটি ফতোয়া প্রদান করেছে।

আরও পড়ুন