মালদ্বীপে বঙ্গমাতার জন্মবার্ষিকী উদযাপন

যথাযথ মর্যাদা ও গভীর শ্রদ্ধায় বাংলাদেশ হাইকমিশন মালদ্বীপে বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৯২তম জন্মবার্ষিকী উদযাপিত হয়েছে।

সোমবার মালদ্বীপের বাংলাদেশ হাইকমিশনের হলরুমে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

পবিত্র কোরআন থেকে তিলাওয়াতের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা হয়। দিবসটি উপলক্ষে সেখানে রাষ্ট্রপতির বাণী পাঠ করেন দূতালয়ের দ্বিতীয় সচিব মিজানুর রহমান ভূঁইয়া এবং প্রধানমন্ত্রীর প্রদও বাণী পাঠ করেন দূতালয়ের প্রসাশসনিক কর্মকর্তা আ. সালাম।

 

এরপর বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিবের জীবন ও কর্মের উপর ভিত্তি করে একটি তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হাইকমিশনার রিয়ার এডমিরাল এস এম আবুল কালাম আজাদ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হাইকমিশনের প্রথম সচিব ও চ্যান্সারি প্রধান সোহেল পারভেজ, তৃতীয় সচিব মো. মিজানুর রহমান, কল্যাণ সহকারী মো. জসিম উদ্দিন ও মো. আল মামুন পাঠানসহ কর্মকর্তাবৃন্দ।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ মালদ্বীপ শাখার সভাপতি ও ব্যবসায়ী আলহাজ্ব দুলাল মাদবর, সিনিয়র সহ-সভাপতি হাজী মো. সাদেক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ব্যবসায়ী নুরে আলম রিন্টুসহ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও প্রবাসী বাংলাদেশিরা।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন দূতালয়ের কনস্যুলার সহকারী মো. ইবাদ উল্লাহ।

প্রধান অতিথি এস এম আবুল কালাম আজাদ বঙ্গমাতার সাফল্যময় কর্মজীবনের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন। তিনি বলেন, বঙ্গমাতা বাঙালি জাতির গর্ব এবং নারীদের অনুপ্রেরণার উৎস।

তিনি জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের কবিতা থেকে ‘পৃথিবীতে যা কিছু মহান সৃষ্টি চির কল্যাণকর, অর্ধেক তার করিয়াছে নারী, অর্ধেক তার নর’ উদ্ধৃত করেন। এর আলোকে তিনি উল্লেখ করেন, বঙ্গমাতার জীবনী বিশ্লেষণে আমরা তার জীবনে জাতীয় কবির এই কবিতার প্রকৃত প্রতিফলন দেখতে পাই। তার আত্মত্যাগ এবং আজীবন সংগ্রামের অসামান্য অবদানের জন্য জাতি তাকে বঙ্গমাতার আসনে অধিষ্ঠিত করেছে। বঙ্গবন্ধু এবং বঙ্গমাতার সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে দেশের উন্নতি ও সমৃদ্ধির জন্য গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন হাইকমিশনার।

অনুষ্ঠান শেষে দেশের অগ্রগতি ও সমৃদ্ধি এবং ১৫ আগস্টে নিহত বঙ্গবন্ধু, বঙ্গমাতা এবং পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ দোয়া করা হয়। দোয়া পরিচালনা করেন মদিনার জামাত মালদ্বীপ শাখার প্রতিষ্ঠাতা আহ্বায়ক ও প্রবাসী সাংবাদিক  মো. আল আমিন।

আরও পড়ুন