রংপুরে অস্ত্রের ভূয়া লাইসেন্স মামলায় ৪৫ জন কারাগারে

রুহুল আমিন হৃদয়, রংপুরঃ

রংপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের অফিস সহকারী শামসুল ইসলাম অস্ত্রের ভূয়া লাইসেন্স ইস্যু করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়া এবং অস্ত্রের ভুয়া লাইসেন্স নেবার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় ৪৫ আসামীর জামিন না মঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছে বিজ্ঞ আদালত। সোমবার বিকেলে রংপুর জেলা ও দায়রা জজ ও সিনিয়র স্পেশাল জজ রাশেদা সুলতানা এ আদেশ প্রদান করেন।

রংপুরের দুদক আইনজীবী হারুনর রশীদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। দুদক আইনজীবী জানান রংপুরের জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের অফিস সহকারী সামসুল ইসলাম অস্ত্রের ভুয়া লাইসেন্স তৈরী করে প্রায় ৪শ’র বেশী ভূয়া লাইসেন্স তৈরী করে জন প্রতি ৩/৪ লাখ টাকা নিয়ে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের ব্যক্তিদের কাছে সরবরাহ করে।

এই সব অস্ত্রের ভুয়া লাইসেন্স নেয়া ব্যক্তিদের বেশীর ভাগই সেনা সদস্য। বিষয়টি জানাজানি হলে জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে একটি দল অস্ত্রের লাইসেন্স শাখার অফিস সহকারী সামসুল ইসলামের কক্ষ তল্লাশী করে ৩৯১ টি অস্ত্রের ভুয়া লাইসেন্সের কাগজ নগদ ২০ লাখ টাকা সহ বিভিন্ন মালামাল উদ্ধার করেন। এ ঘটনায় জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তা অমুল্য চন্দ্র রায় বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন।

পরবর্তীকালে দূর্নীতি দমন কমিশন মামলাটি আমলে নিয়ে তদন্ত করে। তদন্ত শেষে ৩ শ ৯১ জনের নামে ২০/০৬/১৯ইং তারিখে আদালতে চার্জসীট দাখিল করে। গত সোমবার ওই মামলার চার্জসীটভুক্ত ৪৫ জন আসামী আদালতে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করলে বিজ্ঞ বিচারক তাদের জামিন না মঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এ ব্যাপারে দুদক আইনজীবী হারুনর রশীদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান ৪৫ জন আসামী আদালতে আত্মসমর্পন করে জামিনের আবেদন করলে বিচারক তাদের জামিন না মঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন।
তিনি আরো জানান দুদক ৩শ ৯১ জন আসামীর বিরুদ্ধে দুদক আইনের ২০০৪ সালের ১৯(৩) ধারা দন্ড বিধি আইনের ৪৬৭/৪৬৮/৪৭১/৪৫৮ ধারা ও মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনের ৪(২) ধারায় চার্জ সীট দাখিল করেছে। এই মামলার প্রধান আসামী অফিস সহকারী সামসুল ইসলাম দীর্ঘ দিন কারাগারে থাকার পর হাইকোর্টের নির্দেশে অন্তবর্তীকালীন জামিনে আছে।

আরও পড়ুন