শিক্ষিকা ঝুমুর সাসপেন্ড

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার তেঘরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক জিনাতুল তানভী ঝুমুরকে সাময়িক বরখাস্ত (সাসপেন্ড) করা হয়েছে। গত ১০ মাস বিনা অনুমতিতে স্কুলে অনুপস্থিত থাকায় এ পদক্ষেপ নিয়েছে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস। বৃহস্পতিবার (৭ নভেম্বর) এই তথ্য জানা যায়।

এর আগে  এ নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। তাতে বলা হয়, তিনি একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা। গত ১০ মাস ধরে একবারও তিনি বিদ্যালয়ে যান নি অথচ অভিযোগ আছে ঠিকই বেতন তুলে নিয়েছেন। জানা যায়, শিক্ষিকা তানভী ঝুমুরের স্বামী সুনামগঞ্জ-১ আসনের সাংসদ মোয়াজ্জেম হোসেন রতন। সংসদ সদস্যের স্ত্রী হওয়াতেই তার অনুপস্থিতি নিয়ে বিদ্যালয়ে কেউ কোনো প্রশ্ন তোলেন নি। ঘটনাটি ঘটেছে সুনামগঞ্জের সদর উপজেলার তেঘরিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। জানা গেছে, অভিযুক্ত তানভী ঝুমুর এখন এমনকি এলাকাতেও থাকেন না, তিনি ঢাকার ন্যাম ভবনে স্বামীর ফ্ল্যাটেই বসবাস করেন।

ঠিক কতদিন ধরে তেঘরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত আছেন তানভী ঝুমুর, প্রশ্নে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বলেন, আমি এই বিদ্যালয়ে এসেছি ছয় মাস হলো। এসে উনাকে পাইনি। তবে উপস্থিতির খাতা দেখে জানতে পারলাম, তানভী ঝুমুর গত ৭ জানুয়ারি একদিনের ছুটি নিয়ে আর বিদ্যালয়ে আসেননি। এ বিষয়ে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এনামুর রহীম বাবর জানান, উপজেলায় তানভী ঝুমুর নামে কোনো শিক্ষিকা আছেন বলে জানা নেই আমার। এ বিষয়ে অভিযুক্ত শিক্ষিকা তানভী ঝুমুর ও তার স্বামী সুনামগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের বক্তব্য নেয়া যায়নি।

আরও পড়ুন