সেই আ’লীগ নেতা বিশেষ অর্ডারে বানিয়েছেন ৫টি ভল্ট

রাজধানীর গেণ্ডারিয়া থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি এনামুল হকের বাসায় অভিযান চালিয়ে নগদ কোটি টাকাসহ ৭২০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার উদ্ধার করেছে র‌্যাব। সূত্রে জানা গেছে, সূত্রাপুরের বানিয়ানগরের নিজ বাড়িতে তিনি ক্যাসিনোর টাকা রাখার জন্য তিনটি ভল্ট বানিয়েছেন এনামুল। তবে সেখানেও টাকা রাখার জায়গা হতো না। তাই টাকা দিয়ে স্বর্ণালঙ্কার কিনতেন তবে এসব স্বর্ণ ও টাকা রাখতে ইংলিশ রোডে ৫টি বল্ট বানানোর বিশেষ অর্ডার দেন এনামুল। এ সূত্র ধরেই র‌্যাব নিশ্চিত হয় তার কাছে ৫টি ভল্ট রয়েছে।

ওয়ান্ডারার্স ক্লাবের এই শেয়ারহোল্ডার ক্যাসিনো থেকে পাওয়া টাকা নিজ বাড়ির ভল্টে রাখতেন। এর ভেতরে টাকা রাখার জায়গা না থাকায় সোনা কিনে রাখতেন তিনি। এভাবে ৩৭০ ভরি সোনা কিনেছেন এই ক্লাব ব্যবসায়ী।

মঙ্গলবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সকালে এনামুল হক ও তার ভাই রুপন ভূঁইয়ার নারিন্দার বাসায় অভিযান চালানো হয়। অবশ্য গভীর রাতেই বাসাটি ঘিরে রাখে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

র‌্যাব জানিয়েছে এক সপ্তাহ আগে এনামুল হক থাইল্যান্ড পালিয়েছে। এনামুলের ভাই সূত্রাপুর থানা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক রুপন ভূইয়াও পলাতক রয়েছে। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। তারা দু’জনই ক্যাসিনো ব্যবসায় জড়িত।

অন্যদিকে দুপুরে র‌্যাব অভিযান চালায় এনামুলের কর্মচারী আবুল কালাম আজাদের নারিন্দার বাসায়। নারিন্দার লালমোহন রোডের ৮৩/১ বাসায় অভিযান চালিয়ে সেখানে ভল্ট পাওয়া গেছে। সেই ভল্ট থেকে উদ্ধার করা হয়েছে ২ কোটি টাকা।

র‌্যাব জানিয়েছে এনামুল টাকা রাখার জন্য নিজ বাসায় একাধিক ভল্ট বানিয়েছেন। কিন্তু তাতেও টাকার সংকুলান হতো না। তাই তিনি টাকা দিয়ে কিনতেন স্বর্ণ। আর সেই স্বর্ণ রাখতেন ভল্টে।

র‌্যাব এনামুলের বানিয়া নগরের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে সেই ভল্ট থেকেই উদ্ধার করেছে এসব স্বর্ণ ও নগদ অর্থ। এদিন দুপুরে অভিযান শেষে র‌্যাব-৩ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল সফিউল্লাহ বুলবুল সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন।

তিনি জানান, সূত্রাপুরের বানিয়া নগরে এনামুলের ছয়তলায় বাসার দোতলা ও পাঁচতলায় তিনটি ভল্ট পেয়েছেন। লেফটেন্যান্ট কর্নেল সফিউল্লাহ জানান, একজন ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে ভল্ট খোলা হয়। সেখান থেকে তারা ১ কোটি ৫ লাখ টাকা ও ৭২০ ভরি স্বর্ণালংকার উদ্ধার করেছেন। এ ছাড়া এনামুলের বাসা থেকে পাঁচটি আগ্নেয়াস্ত্রও উদ্ধার করা হয়েছে।

র‌্যাব আরও জানায়, এনামুলের কর্মচারী আবুল কালাম আজাদের নারিন্দার বাসায় রাখা ভল্ট থেকে ২ কোটি ৫ লাখ টাকা উদ্ধার করা হয়। ক্যাসিনো ও অবৈধ জুয়ার বিরুদ্ধে চলমান অভিযানের অংশ হিসেবে এ অভিযান চালিয়েছে বলে জানায় র‌্যাব। অপরদিকে এনামুলের বন্ধু হারুন সরদারের বাসায় অভিযান চালিয়ে আরও ২ কোটি টাকা উদ্ধার করা হয়।

দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব-৩ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল শফিউল্লাহ বুলবুল বলেন, আমাদের কাছে গোয়েন্দা তথ্য ছিল, কয়েকদিন আগে এখানকার ইংলিশ রোডে ৫টি ভল্ট বানানোর অর্ডার দেন এনামুল হক ও রুপন ভূঁইয়া। সেই সূত্রে জানতে পারি তাদের বাসায় তিনটি ভল্ট রয়েছে। বাকি দুটি বাসায় অভিযান চালিয়ে দুটি ভল্টের সন্ধান পাওয়া যায়।

তিনি বলেন, এ পর্যন্ত আমরা প্রায় ৫ কোটি ৫ লাখ টাকা উদ্ধার করেছি। এসব টাকা আমরা আবারও মেশিনের মাধ্যমে গোনে পরিমাণ নিশ্চিত হবো। মূলত ক্যাসিনো সংশ্লিষ্টতার খবর নিশ্চিত হয়েই অভিযান চালানো হয়েছে বলে তিনি জানান।

আরও পড়ুন