হাসপাতাল থেকে পালিয়েছেন ভারত ফেরত করোনা রোগী

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আইসোলেশন বিভাগ থেকে ভারত ফেরত একজন করোনা রোগী পালিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে। বুধবার বিষয়টি জানাজানি হলে হাসপাতাল এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়।

এদিকে, কর্তৃপক্ষের দাবি, করোনা বিভাগে দায়িত্বরত একজন তাকে ছাড়পত্র দিয়েছে। বিষয়টি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের জানা ছিল না। ফলে বিষয়টি নিয়ে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়।

তবে অনেকেই অভিযোগ করছেন, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নিজেদের দুর্বলতা ঢাকার জন্য করোনার ওই রোগীকে ছাড়পত্র দেওয়ার কথা বলছেন। অভিযুক্ত রোগীর নাম আবুল কালাম আজাদ (৪৫)। তিনি চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাট এলাকার মৃত সিজার আলীর ছেলে।

 

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, গত ৯ জানুয়ারি ভারত থেকে চুয়াডাঙ্গার দর্শনা চেকপোস্ট দিয়ে বাংলাদেশে আসেন আবুল কালাম আজাদ। সীমান্তে তার স্বাস্থ্য পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয়। পরে তাকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আইসোলেশন বিভাগে ভর্তি রাখা হয়।

হাসপাতালের একাধিক সূত্র জানায়, মঙ্গলবার সকালে খাবার পরিবেশন করতে গিয়ে আবুল কালাম আজাদকে না পেয়ে হাসপাতালের কর্মীরা কর্তৃপক্ষকে জানায়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষও অনেক খোঁজাখুঁজি করে তাকে পায়নি। অভিযোগ রয়েছে বিষয়টি মঙ্গলবার সারাদিন ধামাচাপা দিয়ে রাখে কর্তৃপক্ষ।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. ওয়াহেদ মাহমুদ রবিন বলেন, ওই রোগীর নমুনা পরীক্ষার পর মঙ্গলবার সকালে তার নেগেটিভ ফল আসে। তারপর থেকে তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। পরে জানা যায় করোনা বিভাগে দায়িত্বরত মোহাম্মদ রনি কাউকে না জানিয়ে তাকে ছাড়পত্র দিয়েছে।

 

 

আরও পড়ুন