হোম কোয়ারেন্টাইনে থেকে ফুটবলার আঁখির আক্ষেপ

বাংলাদেশ জাতীয় নারী দল ও বসুন্ধরা কিংসের নারী ফুটবলার গোল্ডেন বুট জয়ী তারকা ডিফেন্ডার আঁখি খাতুন করোনাভাইরাসের কারণে এখন হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন।

বয়সভিত্তিক দল ও জাতীয় দলের নিয়মিত মুখ এই নারী ফুটবলার আক্ষেপ করে বলেন, ঈদের শপিং করতে গিয়ে করোনার ঝুঁকি বাড়াচ্ছে সাধারণ মানুষ।

আঁখির নিজের বাড়ি সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরের পারকোলা গ্রামে। ক্লাব লিগ বন্ধ হওয়ার পরেই চলে এসেছেন বাড়িতে।

আঁখি সরকারি নির্দেশনা মেনে ও অন্যদের সচেতন করে হোম কোয়ারেন্টাইনে থেকে দেশের জন্য সবসময় মঙ্গল কামনা করে মহামারি করোনা থেকে রক্ষার জন্য নিয়মিত নামাজ কালাম পড়ে খোদার কাছে দোয়া প্রার্থনা করছেন বলে জানা গেছে।

এক প্রশ্নের উত্তরে আঁখি বলেন, আমি প্রতিদিন ফজরের নামাজ শেষ করে আব্বু ও আমার বড় ভায়ের সাথে জগিং করে বাড়িতেই শারীরিক অনুশীলন করি নিজের ফিটনেস ধরে রাখার জন্য।

সারাদিন বড়ির কাজে মাকে সহযোগিতা। এছাড়া ক্লাব সতীর্থদের সঙ্গে ম্যাসেঞ্জারে গ্রুপে যোগাযোগ করে সবার খোঁজখবর নিয়ে এক ভাতৃত্বপূর্ণ আড্ডায় দিন শেষ হয় এই তারকার।

এছাড়া জাতীয় দলের কোচ ছোটন ভাইয়ের সাথেও যোগাযোগ হয়। তিনি দু-তিন দিন পর পরই ফোন করে খোঁজ নেন বলে জানান আঁখি।

এদিকে মেয়েদের ক্লাব ফুটবল স্থগিত হওয়া লীগ নিয়ে তিনি বলেন, শুধু আমি না ক্লাবের সকল ফুটবলারদেরই এখন মন খারাপ। আমাদের খেলাটা যদি শেষ হতো তাহলে অনেক ভালো হত। ফাইনাল পর্যন্ত খেলে চ্যাম্পিয়ন হতে পারতাম।

অপরদিকে করোনার বিশেষ সাবধানতা নিয়ে তিনি আক্ষেপ করে বলেন, আমি করোনার জন্য বাসা থেকে খুব কম বের হই। সাবান দিয়ে নিয়মিত হাত ধুই। সব নিয়ম কানুন মেনে চলছি। কিন্তু আমাদের সিরাজগঞ্জ শহরে এবং আমার এলাকা শাহজাদপুর সহ প্রতিটি এলাকার হাট বাজারে লোকজন ঈদের মার্কেট করতে দল বেঁধে বের হয়ে পড়েছে। বাজার আগের মতোই চলছে।

‘এক জায়গায় অনেক লোক বসে থাকছে। এভাবেই ঝুঁকিটা বাড়ছে। বাংলাদেশে কিন্তু করোনাভাইরাস অতটা ছিল না। যখন দু-একজন শনাক্ত হয়েছিল তখন আমরা যদি সচেতন হতাম তাহলে হয়তো পরিস্থিতি এতটা খারাপ হতো না। আশেপাশের লোকজনের চলাফেরা দেখে মনে হয় এই মহামারি করোনায় তাদের কিছুই যায় আসে না।’

সবশেষ সবাইকে সতর্ক করে আঁখি বলেন, খুব বেশি প্রয়োজন না হলে ঘরের বাইরে যাবেন না। বাসায় থাকুন। বাইরে যত বেশি যাবেন করোনা হওয়ার ঝুঁকি আরও মারত্মক হয়ে উঠবে।

আরও পড়ুন