নিউইয়র্কে বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন

advertisement

নিউইয়র্কের ‘কুইন্স সেন্ট্রাল লাইব্রেরি’ -এর চিলড্রেনস্ ডিসকভারি সেন্টারে জাতিসংঘের বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন ও নিউইয়র্কস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেলের উদ্যোগে এবং কুইন্স সেন্ট্রাল লাইব্রেরির সহযোগিতায় যৌথভাবে, যথাযোগ্য মর্যাদায় ও আনন্দঘন পরিবেশে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন করা হয়।

এতে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতিসংঘের কমিশন অন দ্যা স্টাটাস অব উইমেন (সিএসডব্লিউ) -এর ৬৩তম সেশনে অংশগ্রহণ উপলক্ষে নিউইয়র্ক সফররত বাংলাদেশের শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, ‘যেভাবে দক্ষিণ আফ্রিকার শিশুরা লেনসন ম্যান্ডেলাকে জানবে, যেভাবে ভারতের শিশুরা মহাত্মা গান্ধীকে জানবে, ঠিক তেমনিভাবেই বাংলাদেশের শিশুরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানকে জানবে। জাতির পিতা তার অবিসংবাদিত নেতৃত্বের মাধ্যমে জেল, জুলুম, অত্যাচার-নির্যাতন, কারাবরণ সহ্য করে আমাদের শিশুদের জন্য এক স্বপ্নময় স্বাধীন-স্বার্বভৌম বাংলাদেশ উপহার দিয়ে গেছেন। তাই দেশ ও প্রবাসের সকল বাঙালি শিশুরা জাতির পিতার আদর্শ ধারণ করে বড় হয়ে উঠবে, এটাই আমার প্রত্যাশা।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন। তিনি উপস্থিত শিশুদেরকে বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ থেকে অংশবিশেষ পাঠ করে শোনান।

স্থায়ী প্রতিনিধি বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবসের এবারের প্রতিপাদ্য ‘বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন, শিশুর জীবন করো রঙ্গিন’ উল্লেখ করে সকলকে শিশুদের জীবনকে আরও রঙ্গিন করতে এগিয়ে আসার অনুরোধ জানান রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন।

নিউইয়র্কে জাতির পিতার জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন

অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন নিউইয়র্কস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেলের কনসাল জেনারেল মিজ্ সাদিয়া ফয়জুননেসা। কুইন্স লাইব্রেরির প্রতিনিধি মাহেন্দ্র ইন্দ্রজিৎ বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল ও জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের সাথে যৌথভাবে কাজ করতে পেরে কুইন্স লাইব্রেরি সমৃদ্ধ হচ্ছে মর্মে অভিমত ব্যক্ত করেন।

দিবসটি উপলক্ষে শিশুদের জন্য চিত্রাঙ্কন ও রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজনের পাশপাশি শিশুদের উপস্থাপনা ও পরিবেশনায় অনুষ্ঠিত মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক পর্বটি উপস্থিত সুধিজনের ভূয়সী প্রশংসা অর্জন করে।

এর আগে সকালে জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন ও নিউইয়র্কস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল নিজ নিজ কার্যালয়ে জাতির পিতার ৯৯তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস ২০১৯ উপলক্ষ্যে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ, আলোচনা সভা এবং জাতির পিতাসহ ১৫ আগস্টের সকল শহীদ, জাতীয় চার নেতা ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধাগণের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা এবং বাংলাদেশের উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি কামনা করে দোয়া করা হয়।

অনুষ্ঠানে নিউইয়র্ক প্রবাসী বাংলাদেশী নাগরিক, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনসহ বিশিষ্ট রাজনৈতিক নেতা-কর্মী, শিক্ষবিদ, শিল্পী, সাংস্কৃতিক কর্মী, সমাজসেবক ও মিডিয়া প্রতিনিধিসহ বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাঙালি উপস্থিত ছিলেন।

You might also like

advertisement