কুষ্টিয়ায় হত্যাকান্ড আসামীকে মৃত্যুদন্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত

কুষ্টিয়া থেকেঃ

advertisement

কুষ্টিয়া শহরের চৌরহাসে ফল রবিউল ইসলাম হত্যা মামলায় নূর আলম (৩০) নামের এক আসামীকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদন্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত। আজ সকাল ১১টায় কুষ্টিয়া জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিজ্ঞ বিচারক অরুপ কুমার গোস্বামী এই রায় প্রদান করেন। সাজাপ্রাপ্ত নূর আলম মাদারীপুর জেলার রাজৈর থানার শংকরদি গ্রামের মৃত আবুল হাছেনের ছেলে।

নিহত ফল ব্যবসায়ী রবিউল ইসলাম ও দন্ডপ্রাপ্ত আসামী নূর আলম সম্পর্কে আপন খালাতো ভাই। শহরের চৌড়হাঁস মোড়
এলাকায় মামা ভাগ্নে নামে একটি ফলের দোকানে ব্যবসা করতো তারা। রায় প্রদানকালে আসামী নূর আলম আদালতে উপস্থিত ছিলেন। মামলার এজাহার সুত্রে জানা যায়, ২০১৭ সালের ২০জুন কুষ্টিয়া শহরের চৌড়হাঁস মোড় এলাকায় নিহত ব্যবসায়ীর ফলের দোকানের পিছনে থাকা একটি ড্রামের ভিতর থেকে তার অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

হত্যাকান্ডের ঘটনায় নিহতের স্ত্রী বন্যা আক্তার বাদী হয়ে নূর আলমকে আসামী করে কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এই ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে নূর আলমকে আটক করে কুষ্টিয়া থানা পুলিশ। দীর্ঘ শুনানি শেষে আজ বিজ্ঞ আদালতের বিচারক এই রায় প্রদান করেন। অন্যদিকে কুষ্টিয়া কালিশংকরপুরে শিশু ধর্ষন মামলায় জামাল উদ্দিন (৪২) নামের এক আসামীকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছে আদালত। আজ বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় কুষ্টিয়া নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতের বিচারক মুন্সী মোঃ মশিয়ার রহমান এই রায় প্রদান করেন।

রায় ঘোষনার সময় আসামী পলাতক ছিল। সাজাপ্রাপ্ত আসামী জামাল উদ্দিন মাগুড়া জেলার পারনান্দুমালী গ্রামের মৃত: আবুল হাশেমের ছেলে। আদালত সূত্রে জানাযায়, ২০১০ সালের ৯অক্টোবর কুষ্টিয়া শহরের কালীশংকরপুর এলাকার ভারাটিয়া জামাল উদ্দিন প্রতিবেশী শিশুকণ্যাকে মা-বাবা অনুপস্থিতিতে চকলেট দেয়ার নাম করে ঘরে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করে।

এঘটনায় শিশুটির মা বাদি হয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানায় জামাল উদ্দিনকে আসামী করে একটি শিশু ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। মামলাটি তদন্ত শেষে ২০১০ সালের ০১ডিসেম্বর আসামী জামালের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের দ:বি: ৯(১)ক ধারায় অভিযোগ এনে আদালতে অভিযোগ পত্র দাখিল করেন পুলিশ। দীর্ঘ স্বাক্ষ্য শুনানী শেষে অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় জামিনে থেকে পলাতক আসামী জামাল উদ্দিনের অনুপস্থিতিতেই বিজ্ঞ আদালত তাকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড এবং এক লক্ষ টাকা জরিমানার আদেশ প্রদান করেন। কুষ্টিয়া জজ কোর্টের সকরারী কৌশুলী এ্যাড. অনুপ কুমার নন্দী দুটি মামলারই রায়ের বিষটি নিশ্চিত করেছেন।

advertisement

You might also like

advertisement