সাংবাদিকতার নামে গোপনে অস্ত্র ও মাদক ব্যবসা

মাদক

advertisement

দৌলতপুর প্রতিনিধি ।। কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর থানার ৫নং রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের ইন্ডিয়া বর্ডার সংলগ্ন কাস্টম মোড় নামক জায়গায় বিশিষ্ট মাদক ব্যবসায়ী গিয়াস ওরফে ডিস ওরফে সাংবাদিক গিয়াস। তার নিজের শশুরের বাড়ীতে গতকাল রাত আনুমানিক ০৮:১০ মিনিটে থেকে শুরু রাত ১১টা অবধি বিজিবি মহিষকুন্ডি ও ঠোটার পারা বিজিবি ক্যাম্পের যৌথ অভিযানে গিয়াসের শশুর ফিরোজ এর বেডরুম থেকে ৯ কেজি ২ শত গ্রাম গাজা উদ্ধার করে বিজিবি তবে কোন আসামি পাওয়া যায়নি।বিজিবি আসার আগে গিয়াস ও তার শশুর বাড়ী থেকে পালিয়ে যায়। এই গাজার মুল হোতা গিয়াস। সে ডিস ব্যবসা ও সাংবাদিক পদের আড়ালে দীর্ঘ দিন যাবত মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রন করে আসছে। গত কয়েক দিন আগে ডাংমড়কা বাজার থেকে দৌলতপুর থানা পুলিশ চার্জ করলে সাংবাদিক নামে বেঁচে যান। এই গিয়াস সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে তাকে মুচলেকার মাধ্যমে তার শশুর ফিরোজ কে ছাড়িয়ে নেয়। এছাড়াও সাংবাদিক পরিচয়ে এলাকার প্রশাসন এর সাথে বিভিন্ন মিটিং এ উপস্থিত থাকেন। আর একেই বলে শর্মের মধ্যে ভুত। গিয়াস ও তার শশুর ফিরোজ এমন কোন অস্ত্র ও মাদক ব্যবসা নেই যা করে না। গত ৭ থেকে ৮ বছর আগে এই মাদক সম্রাট গিয়াস ৫ নং রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের ভাগজোত বাজারে আফাজ মাস্টারের ছেলে কিরন এর মোবাইলের দোকানে ২৫০০ টাকা বেতনে চাকরী করতো। অথচ বর্তমান এই সময়ের মধ্যে কোটি টাকার মালিক হলেন কিভাবে এলাকার মানুষ চিন্তা করতো। তার হাত ধরে ওই এলাকায় অনেকে মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচছে। এই বিশিষ্ট মাদক ব্যবসায়ী গিয়াস ও ফিরোজ ডিস ব্যবসা ও সাংবাদিক পরিচয় পত্র ঢাল হিসাবে ব্যবহার করে মাদক ও অস্ত্র ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। ৫নং রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়ন বাসীর দাবী যাতে আমাদের এলাকা মাদকের ভয়াল থাবা থেকে মুক্তি পায় এলাকার যুবসমাজ। কুষ্টিয়া জেলা পুলিশ সুপার মহাদয়, জেলা প্রশাসক মহাদয়, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর ও দৌলতপুর থানা ভারপ্রাপ্ত মহাদয় কাছে এই মাদক ব্যবসায়ী গিয়াস ও ফিরোজ ও অন্যানা সকল কে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তো মূলক শাস্তি দাবী এলাকা বাসীর।

You might also like

advertisement