জাতীয়

সারাদেশ

কুষ্টিয়া থেকেঃ

কুষ্টিয়া অধিকাংশ আখের গুড় তৈরীতে ব্যবহৃত হচ্ছে ক্ষতিকর হাইড্রোজ। সরেজমিনে দেখা যায়, কুষ্টিয়ার বিভিন্ন অঞ্চলে আখ মাড়ায়ের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে আখ মাড়াই কেন্দ্র। এই আখ মাড়াই কেন্দ্র গুলোর অধিকাংশতেই গুড় তৈরীতে ব্যবহার করা হচ্ছে ক্ষতিকর হাইড্রোজ, চিনি ও ময়দা। এতে আখের গুড় দেখতে সুন্দর হলেও তা মানব দেহের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকারক। ইতিমধ্যে, কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা আখ মাড়াই কেন্দ্রে অভিযান চালিয়ে ২ মিল মালিককে নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে আখের গুড় তৈরি, আখের গুড়ে মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর হাইড্রোজ মেশানোসহ গুড়ে চিনি ও ময়দা মেশানোর অভিযোগে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর ৪৩ ধারা মোতাবেক সন্ধ্যা ও রেশমী নামে আখের গুড় উৎপাদনকারী দুই প্রতিষ্ঠান মালিক উভয়কে ৩০০০/টাকা (তিন হাজার টাকা) জরিমানা আরোপ ও আদায় করেছে।এছাড়াও কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালীতে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা আখ মাড়াই কেন্দ্রে অভিযান চালিয়ে ২০০০টাকা জরিমানা করেছে ভোক্তা অধিদপ্তর। এতো কিছু সত্বেও এখনো কুষ্টিয়া জেলার অধিকাংশ আখ মাড়াই কেন্দ্রে আখের গুড় তৈরীতে ব্যবহৃত হচ্ছে ক্ষতিকর পদার্থ। যা সাময়িকভাবে আখ মাড়াই কেন্দ্রের মালিকরা লাভবান হলেও দীর্ঘস্থায়ী ক্ষতির সম্মখীন হচ্ছে সাধারন জনগন। তাই সচেতন মহল মনে করে, যত দ্রুত সম্ভব এই অবৈধ আখ মাড়াই কেন্দ্রগুলোর বিরুদ্ধে যথাযথ প্রশাসনিক পদক্ষেপ গ্রহন করা হোক।

কুষ্টিয়ায় আখের গুড় তৈরীতে ব্যবহৃত হচ্ছে ক্ষতিকর হাইড্রোজ

কুষ্টিয়া থেকেঃ

কুষ্টিয়া অধিকাংশ আখের গুড় তৈরীতে ব্যবহৃত হচ্ছে ক্ষতিকর হাইড্রোজ। সরেজমিনে দেখা যায়, কুষ্টিয়ার বিভিন্ন অঞ্চলে আখ মাড়ায়ের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে আখ মাড়াই কেন্দ্র। এই আখ মাড়াই কেন্দ্র গুলোর অধিকাংশতেই গুড় তৈরীতে ব্যবহার করা হচ্ছে ক্ষতিকর হাইড্রোজ, চিনি ও ময়দা। এতে আখের গুড় দেখতে সুন্দর হলেও তা মানব দেহের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকারক। ইতিমধ্যে, কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা আখ মাড়াই কেন্দ্রে অভিযান চালিয়ে ২ মিল মালিককে নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে আখের গুড় তৈরি, আখের গুড়ে মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর হাইড্রোজ মেশানোসহ গুড়ে চিনি ও ময়দা মেশানোর অভিযোগে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর ৪৩ ধারা মোতাবেক সন্ধ্যা ও রেশমী নামে আখের গুড় উৎপাদনকারী দুই প্রতিষ্ঠান মালিক উভয়কে ৩০০০/টাকা (তিন হাজার টাকা) জরিমানা আরোপ ও আদায় করেছে।এছাড়াও কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালীতে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা আখ মাড়াই কেন্দ্রে অভিযান চালিয়ে ২০০০টাকা জরিমানা করেছে ভোক্তা অধিদপ্তর। এতো কিছু সত্বেও এখনো কুষ্টিয়া জেলার অধিকাংশ আখ মাড়াই কেন্দ্রে আখের গুড় তৈরীতে ব্যবহৃত হচ্ছে ক্ষতিকর পদার্থ। যা সাময়িকভাবে আখ মাড়াই কেন্দ্রের মালিকরা লাভবান হলেও দীর্ঘস্থায়ী ক্ষতির সম্মখীন হচ্ছে সাধারন জনগন। তাই সচেতন মহল মনে করে, যত দ্রুত সম্ভব এই অবৈধ আখ মাড়াই কেন্দ্রগুলোর বিরুদ্ধে যথাযথ প্রশাসনিক পদক্ষেপ গ্রহন করা হোক।

কুষ্টিয়ায় আখের গুড় তৈরীতে ব্যবহৃত হচ্ছে ক্ষতিকর হাইড্রোজ

ভিন্ন তথ্য