টেকনাফ সীমান্তে ২০ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার, নৌকা জব্দ

 ৬ জুন ২০১৮ বুধবার  ভিডিওসহ দেখতে ক্লিক করুন

অনলাইন ডেস্কঃ

কক্সবাজারের টেকনাফের হ্নীলা ওয়াব্রাং এলাকায় অভিযান চালিয়ে বিজিবি ৬০ লাখ টাকা মুল্যের ২০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যবলেট উদ্ধার করেছে বলে জানা গেছে। তবে এ অভিযানে ইয়াবা চোরাকারবারীরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছে। 

উদ্ধারকৃত ইয়াবা ট্যাবলেটগুলো ব্যাটালিয়ন সদরে জমা রাখা হয়েছে। যা পরবর্তীতে উর্ধতন কর্মকর্তা, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করা হবে। 

টেকনাফ-২ বিজিবির পরিচালক অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল মোঃ আছাদুদ-জামান চৌধুরী  জানান, মঙ্গলবার ভোররাতে  ২ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের অধীনস্থ হ্নীলা বিওপির নায়েক মোঃ ছাবির উদ্দিনের নেতৃত্বে একটি টহল দল ওয়াব্রাং এলাকায় বিশেষ টহলে গমন করে। পরবর্তীতে বিশ্বস্ত গোয়েন্দা তথ্যের মাধ্যমে জানতে পারে যে, ওয়াব্রাং বরাবর নাফ নদী দিয়ে ইয়াবার একটি চালান মায়ানমার হতে বাংলাদেশে প্রবেশ করতে পারে। 

তিনি আরও বলেন, উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে টহলদল দ্রুত বর্ণিত এলাকায় গমন করতঃ অবরাং বেঁড়ীবাধের এক পার্শ্বে ঔঁৎ পেতে থাকে।  পরবর্তীতে ৫ জুন রাত পৌণে ১টার দিকে মায়ানমার হতে একটি নৌকা বাংলাদেশের দিকে আসতে দেখে টহল দল অপেক্ষারত থাকে। কিছুক্ষণ পর নৌকাটি অবরাং বরাবর নাফ নদীর কিনারায় আসা মাত্রই ৩ জন ব্যক্তি একটি ব্যাগ হাতে নৌকা থেকে নামার প্রাক্কালে টহল দল তাদের চ্যালেঞ্জ করে। আকস্মিক বিজিবি টহল দলের উপস্থিতি লক্ষ্য করা মাত্রই ইয়াবা চোরাকারবারীরা ব্যাগটি ফেলে দ্রুত দৌড়ে পার্শ্ববর্তী গ্রামে পালিয়ে যায়। 

অতঃপর টহল দল উক্ত নৌকাটি আটক করতঃ ইয়াবা পাচারকারী কর্তৃক ফেলে যাওয়া ব্যাগটি খুলে গণনা করে ৬০ লাখ টাকা মূল্যমানের ২০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। উদ্ধারকৃত ইয়াবা ট্যাবলেটগুলো ব্যাটালিয়ন সদরে জমা রাখা হয়েছে। যা পরবর্তীতে উর্ধতন কর্মকর্তা, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করা হবে। এছাড়াও আটককৃত নৌকাটি সংশ্লিষ্ট কাষ্টম অফিসে জমা করা হয়েছে বলেন টেকনাফ-২ বিজিবির পরিচালক।