জাতিসংঘের শুভেচ্ছা দূত হলেন নাঈমা খান

   ২১  অক্টোবর ২০১৮ রবিবার    ভিডিওসহ দেখতে ক্লিক করুন

অনলাইন ডেস্ক

মানসম্মত শিক্ষার প্রসার ও উন্নয়নের পথ বেয়ে ২০৩০ সালের মধ্যে ‘টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য’ তথা এসডিজি অর্জনের পথ সুগম করার অভিপ্রায়ে নিউইয়র্কের খান’স টিউটোরিয়ালের চেয়ারপার্সন নাঈমা খানকে ‘জাতিসংঘের শুভেচ্ছা দূত’ হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছে।

ইন্টারন্যাশনাল কংগ্রেস অব মিডিয়ার নির্বাহী পরিচালনা পর্ষদের কো-চেয়ার ড. আমিন ক্রুজ গত ১৫ অক্টোবর এ নিয়োগের আদেশ প্রদান করেন। আর এ নিযুক্তির সনদপত্র হস্তান্তর করা হয় ১৯ অক্টোবর নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দফতরে। এসময় উপস্থিত ছিলেন ইউএস সিনেটর বব বেমেন্ডেজ (নিউজার্সি), কংগ্রেসম্যান আদ্রিয়ানো এসপাইলেট, নিউইয়র্ক সুপ্রিম কোর্টের জজ কারমেন ভেরাজকুয়েজ।

‘শুভেচ্ছা দূত’ হিসেবে নাঈমা খান আগামী ৩ বছর মর্যাদাসম্পন্ন শিক্ষা প্রসারের নানা কর্মসূচি নিয়ে বিভিন্ন দেশে সভা-সিম্পোজিয়াম করবেন। এসডিজি অর্জনের ১৭টি বিষয়ের মধ্যে চতুর্থতম হচ্ছে শিক্ষা।

প্রসঙ্গত, নিউইয়র্কে স্বল্প আয়ের বাংলাদেশিসহ অভিবাসী সমাজের সন্তানদের সেরা হাই স্কুল ও খ্যাতনামা ভার্সিটিতে ভর্তির উপযোগী কোর্স প্রদানের মধ্য দিয়ে গত দুই দশকে ব্যাপক সুনাম অর্জন করেছে ‘খান’স টিউটোরিয়াল’। এর প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন ড. মনসুর খান-যাকে একুশে পদক (শিক্ষা) দেয়া হয়েছিল। প্রতিষ্ঠানটির ১১টি শাখা চালু রয়েছে নিউইয়র্কে সিটিতে।

নাঈমা খান তার এ বিশেষ সম্মানের জন্যে প্রবাসী বাংলাদেশিদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। স্কুলগামী সন্তানদের উচ্চ শিক্ষায় নিষ্ঠার সাথে দিক-নির্দেশনা প্রদানের জন্যে সকল অভিভাবকের আস্থা তৈরি হবার পরিপ্রেক্ষিতে এমন একটি বিরল দায়িত্ব পেয়েছেন বলে মনে করেন নাঈমা খান। এর মাধ্যমে প্রকারান্তরে বাংলাদেশের মুখই উজ্জ্বল হবে বলে মনে করেন তিনি।