সোমবারের মধ্যে রেল চলাচল স্বাভাবিক হবে.... টাঙ্গাইলে রেলমন্ত্রী

 ২০ আগস্ট  ২০১৭, রবিবার সহ দেখতে ক্লিক করুন

হাফিজুর রহমান, টাঙ্গাইল জেলা প্রতিনিধি:

রেলপথমন্ত্রী মুজিবুল হক এমপি বলেছেন, নদীর পানির প্রবলস্রোতে রেলসেতুর অ্যাপ্রোচে ধস নেমেছে। আমাদের রেলওয়ের প্রধান প্রকৌশলীর নেতৃত্বে একটি বিশেষ টীম সংস্কার কাজ করছে। আগামিকাল সোমবারের (২১ আগস্ট) মধ্যে ঢাকা থেকে উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক হবে। অ্যাপ্রোচের ধস মেরামত করতে যেসব সরঞ্জামাদী লাগে তার সবগুলোই আনা হয়েছে। রেলওয়ে বিভাগের দক্ষ কর্মীরা মেরামত কাজ করছে। আরো সরঞ্জামাদী লাগলে আনা হবে।

মন্ত্রী আরো বলেন, নদীর মধ্যে যদি কেউ ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে থাকে তবে তা খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেয়া হবে। ঢাকা-টাঙ্গাইল সরাসরি কমিউটার ট্রেন যোগাযোগ স্থাপনের বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এমপি মজিবুল হক বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে প্রতিশ্রুতি দেন তা বাস্তবায়ন করেন। প্রধানমন্ত্রী প্রতিশ্রুতি দিয়ে থাকলে আপনাদের (টাঙ্গাইলের মানুষের) দাবি অবশ্যই পুরণ হবে। মন্ত্রী রোববার(২০ আগস্ট) দুপুরে টাঙ্গাইলের এলেঙ্গা পৌরসভার পৌলি রেল সেতুর দক্ষিণ পাশে অ্যাপ্রোচ সড়ক ধস পরিদর্শনে এসে এসব কথা বলেন।

এ সময় টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক খান মো. নুরুল আমিন, পুলিশ সুপার মাহবুব আলম পিপিএম, টাঙ্গাইল পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী শাজাহান সিরাজ, কালিহাতী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোজহারুল ইসলাম তালুকদার, কালিহাতী উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবু নাসার উদ্দিন, এলেঙ্গা পৌরসভার মেয়র মো. শাফি খান ও রেলওয়ের র্উর্ধতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। প্রকাশ, টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলায় পৌলি নদীর উপর রেল সেতুর অ্যাপ্রোচের মাটি প্রায় ৩০ ফুট ধসে পড়ে। ফলে ঢাকার সাথে উত্তরবঙ্গ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের রেল যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। রোববার(২০ আগস্ট) সকাল ছয়টার দিকে স্থানীয়রা রেল সেতুর অ্যাপ্রোচের মাটি সরে যেতে দেখে। তারা স্থানীয় প্রশাসনকে বিষয়টি অবহিত করে। এরপর স্থানীয় লোকজন লাল কাপড় টানিয়ে সতর্কবার্তা প্রদর্শন করে ট্রেন থামায়। সকাল ১০টার দিকে গাজিপুর থেকে উদ্ধারকারী রেল ঘটনাস্থলে পৌঁছে ধসেপড়া অ্যাপ্রোচ পর্যবেক্ষণ করে। পরে বালির বস্তা ফেলে ধসে যাওয়া অংশ সংস্কারের চেষ্টা চালানো হচ্ছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মেরামত কাজ চলছে। ঘটনাস্থলে রেলওয়ের স্থানীয় কর্মকর্তারা উপস্থিত রয়েছেন।