বিএম কলেজের দুই ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে অধ্যক্ষ বরাবর আবাসিক ছাত্রীদের স্মারকলিপি

প্রবাসী বাংলা ।১০ জানুয়ারি ২০১৬, রবিবার 

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ সরকারী বিএম কলেজের দুই ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে অধ্যক্ষ বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছে কলেজের বনমালী গাঙ্গুলি ছাত্রী নিবাসের আবাসিক ছাত্রীরা। রবিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ছাত্রী নিবাসের প্রায় দেড়শ আবাসিক ছাত্রী কলেজ অধ্যক্ষ স.ম ইমানুল হাকিমের কাছে এ স্মারকলিপি প্রদান করেন। স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, ৪ই জানুয়ারি সকাল সাড়ে ৭টায় বিএম কলেজের ছাত্রলীগ নামধারী নেতা নাহিদ সেরনিয়াবাত ও ফয়সাল আহম্মেদ মুন্না বিনা কারনে আমাদের হলে ঢুকে আকস্মিক ভাবে আমাদের রুমে প্রবেশ করে। আমরা চিৎকার চেঁচামেচি করলে মেয়েরা সকলে বের হয়ে আসে এবং কিছু না বুঝার আগেই তাদের ধাওয়া করে। আমরা জানিনা, যদি সেদিন আমরা একত্রিত না হতাম তাহলে আমাদের কি হত। পরের দিন সকল পত্রিকায় এ নিয়ে খবরও প্রকাশিত হয়। যার ফলে প্রতিনিয়ত তারা, আমরা রাস্তায় বের হলে বহিরাগত সন্ত্রাসী দিয়ে এসিড নিক্ষেপের হুমকি দেয় ও হল ছাড়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করে আসছে। এমনাবস্থায় আমরা হলের সাধারন ছাত্রীরা সব সময় ভয় ভীতির মধ্যে থাকি। ছাত্রীরা স্মারকলিপিতে আরও উল্লেখ করেন, কলেজের এসব নারী লোভীদের হাত থেকে আমরা দ্রুত নিস্তার চাই ও এদের বিচার দাবী করছি। না হলে তারা কঠোর আন্দোলনে যাবেন বলে স্মারকলিপিতে উল্লেখ করেন। এসময় ছাত্রীদের পক্ষে হেনা আক্তার, নাইমা, নুপুর, জোবায়দা আক্তার, মনিরা, হাবিবা খান সহ ১০ জন এ স্মারকলিপিতে স্বাক্ষর করেন। এদের মধ্যে ছাত্রলীগ নেত্রী ও বনমালী গাঙ্গুলি ছাত্রী নিবাসের আবাসিক ছাত্রী হেনা আক্তার জানায়, নাহিদ এবং মুন্না বরাবরই নারীদের উপর দুর্বলতা অনুভব করে। যার প্রেক্ষিতে তারা আমাদের ছাত্রী নিবাসের ছাত্রীদের বিভিন্ন কক্ষে বিনা অনুমতিতেই ঢুকে পরে। এ কারনে আমরা নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কায় আছি। এছারা ৪ তারিখের ঘটনা নিয়ে আমাদের প্রায় হুমকি দিচ্ছে তাদের সাঙ্গ পাঙ্গরা। আর এ কারনে আমরা অধ্যক্ষ বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছি।