কাজিপুরের ইনষ্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজিতে চলছে ব্যাপক ভর্তি বাণিজ্য


 ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭ বুধবার ভিডিওসহ দেখতে ক্লিক করুন 

 সুজন সরকারঃ

সিরাজগঞ্জ কাজিপুরের ইনষ্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি (আইএইচটিতে) চলছে ব্যাপক ভর্তি বাণিজ্য। ল্যাবরেটরী ও ফার্মেসী কোর্সে ভর্তি বাবদ প্রতি ছাত্র/ছাত্রীর কাছ থেকে ৫০০ টাকা হারে অতিরিক্ত ফি হাতিয়ে নিচ্ছেন স্বয়ং অফিস সহকারী নিজেই। এর পাশাপাশি ফরম ফিলাপ সহ বিভিন্ন কাজের জন্য দিতে হচ্ছে আরো ১ থেকে ৫০০ টাকা পর্যন্ত। সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার অভাবে দুর্নীতি আর ঘুষ বাণিজ্যে মেতে উঠলেও বিষয়টি নখদর্পনে আসছে না উপরস্থ মহলের। সরেজমিনে ঘুরে জানাগেছে, সম্প্রতি সিরাজগঞ্জ কাজিপুরের ইনষ্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি (আইএইচটিতে) ল্যাবরেটরী ও ফার্মেসী কোর্সে ভর্তি কার্যক্রম শুরু হয়েছে । আইএইচটি’র ২টি সাবজেটে ১০৩ টি আসনে রয়েছে। এসব আসনের বিপরীতে ইতোমধ্যে ভর্তি কার্যক্রম শুরু করেছেন এখানকার কর্তৃপক্ষ। ২০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ভর্তি চলবে। এদিকে গেলো বছরেও আইএইচটিতে ভর্তি হতে ফি দিতে হতো ১২ হাজার টাকা। কিন্তু চলতি শিক্ষা বর্ষে ভর্তি ফি নির্ধারন করা হয়েছে ১৬ হাজার টাকা। কিন্তু সেখানে রশিদে বিভিন্ন খাতে ১৬ হাজার টাকা করে নেয়া হলে অতিরিক্ত ৫০০ টাকা কোন রশিদে লেখা নেই সে টাকা অফিস সহকারী ফারুক আহম্মেদের পকেটে। এ টাকা কোন ফান্ডে জমা না হলেও আইএইচটি অফিস সহকারী ফারুক আহম্মেদের পটেক ভাড়ি করছে। খোঁজ নিয়ে দেখাগেছে, তাদের প্রতিজনের কাছ থেকেই নেয়া হয়েছে ৫শ টাকা করে। অধ্যক্ষ ডা: শরিফুল ইসলাম জানান, ভর্তির জন্য কোন অতিরিক্ত টাকা নেয়া হচ্ছে না এবং এমন কোন অভিযোগ আমি পায়নি পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে অফিস সহকারী মো: ফারুক আহম্মেদ বলেন, আমাদের অনুমতি রয়েছে। এবং তাও মন্ত্রনালয়ের নির্দেশে বলে জানান। তবে নির্দেশ দিয়ে প্রেরিত চিঠি দেখাতে অপরাগতা প্রকাশ করেন অফিস সহকারী। সারা বাংলাদেশে সকল কলেজ যে ভাবে টাকা নিচ্ছে আমারাও তেমনি নিচ্ছি। অতিরিক্ত ৫০০ টাকার কথা জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন এ টাকা এভাবে আমরা নেই না চা পান খাওয়ার জন্য আমরা নিয়ে থাকি এর বেশি না। ভর্তি হতে আসা শিক্ষার্থীদের বিভিন্নভাবে ফাঁদে ফেলে তাদের কাছ থেকে এক একজনে আদায় করে নিচ্ছে ১শ থেকে ৫শ টাকা। প্রকাশ্যে এমন বাণিজ্য চললেও বিষয়টি দেখা যেন কেউ নেই।