জমে উঠেছে খেজুর গুড়ের হাট

 ৭ ফেব্রুয়ারী২০১৮ বুধবার ভিডিওসহ দেখতে ক্লিক করুন

অনলাইন ডেস্কঃ

দেশের অন্যতম বড় খেজুর গুড়ের হাট বসে চুয়াডাঙ্গার সরোজগঞ্জে। প্রতি বছর শীত মৌসুমে গাছিরা খেজুর গাছের রস থেকে গুড় তৈরি করে। ওই গুড় বিক্রি হয় সদর উপজেলার সরোজগঞ্জ গুড়ের হাটে। দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে গুড় ব্যবসায়ীরা এখানে আসেন গুড় কিনতে। সপ্তাহের শুক্র ও সোমবার হাট বসে । চুয়াডাঙ্গার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্র জানিয়েছে, চুয়াডাঙ্গা জেলায় রয়েছে তিন লক্ষাধিক খেজুর গাছ। শীত মৌসুমে গাছিরা এসব গাছ থেকে রস সংগ্রহ করে গুড় তৈরি শুরু করেন। সরজমিনে সরোজগঞ্জ হাটে গিয়ে দেখা যায় হাজার হাজার গুড়ের ভাড়। ব্যবসায়ীরা জানান, এ বছর ১০/১২ কেজি ওজনের এক ভাড় গুড় বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার টাকা থেকে ১ হাজার ২০০ টাকায়। এ হাটের গুড়ের মান বেশ ভালো, তুলনামূলকভাবে দামও কম। এ কারণে দূর-দূরান্ত থেকে ব্যাপারিরা এ হাটে আসেন গুড় কিনতে। সিরাজগঞ্জ জেলার গুড় ব্যবসায়ী আলতাব মিয়া বলেন, ‘আমি ২৫-৩০ বছর ধরে সরোজগঞ্জের এ হাটে আসি গুড় কিনতে। সিরাজগঞ্জে  চুয়াডাঙ্গার গুড়ের বিশেষ চাহিদা রয়েছে।’ চুয়াডাঙ্গার সরোজগঞ্জ হাটের ইজারাদার জাহিদ হাসান জানান, চুয়াডাঙ্গার খেজুরগুড়ের বিশেষ বৈশিষ্ট্য হলো, ভেজালমুক্ত গুড় তৈরি হয়। এজন্য এর কদরও বেশি। এ হাট থেকে দেশের বিভিন্ন জেলা ও দেশের বাইরে  যাচ্ছে চুয়াডাঙ্গার খেজুর গুড়। তিনি আরও জানান, সরোজগঞ্জে সপ্তাহে অন্তত ১ কোটি টাকার গুড় বেচাকেনা হয়ে থাকে। আগামী মার্চ মাস পর্যন্ত এ হাটে গুড় বিক্রি হবে।

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তালহা জুবাইর মাসরুর বলেন, গুড়ের জন্যই খেজুরগাছের যত্ন নিয়ে থাকেন এলাকার চাষিরা। জেলায় উৎপাদিত গুড় সহজে এবং বেশি দামে সরোজগঞ্জের হাটে বিক্রি করতে পারে চাষিরা।