নবগ্রাম-আশিয়ার- গগণ সড়ক, রাস্তা কর্দমাক্ত তাই ট্রলারে যাাতায়াত, টাকা চাই না পয়সা চাই না, রাস্তা পাকাঁ চাই-

 ৮ আগস্ট  ২০১৬,  সোমবার সহদেখতে ক্লিক করুন


রহিম রেজা, ঝালকাঠি প্রতিনিধি : ঝালকাঠি সদর উপজেলার নবগ্রাম-আশিয়ার- গগন সড়কটি এলাকাবাসির গলার কাটাঁয় পরিনত হয়েছে। ৮ কিলোমিটার কাঁচা রাস্তায় এক চাকা মাটিও পড়েনি গত ৪০ বছরে। বর্ষাকালে এ রাস্তায় কর্দমাক্ততার কারনে পায়ে হাটও দায়। তবুও কর্দমাক্ত পিচ্ছিল এ রাস্তাটি দিয়েই প্রতিদিন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা ঝুঁকি নিয়েই যাতায়াত করছে। কর্দমাক্ত পাড়ি দিয়েই হাটবাজারে যেতে হয় এলাকাবাসিকে। নির্বাচন এলেই জনপ্রতিনিধিরা এ রাস্তাটি পাকা করণের প্রতিশ্রুতি দেন। কিন্তু নির্বাচনের পরে আর কেহই খোঁজ রাখেন না। একাধিক এলাকাবাসি ক্ষোভ প্রকাশ কওে জানান, নেতা আসে নেতা যায়, কিন্তু এ রাস্তা পাকা হয় না। বর্ষা মৌসুমে গুরুত্বপূণর্  এ সড়ক দিয়ে চলাচল প্রায় বন্ধ হয়ে পড়ে। হাটু সমান কাঁধা মাটির পেরিয়েই এ রাস্তা দিয়ে যেতে হয় তাদেরকে। তবুও খানাখন্দে ভরা এ রাস্তাটি সংস্কারের কোনো উদ্যোগ নেয়নি বা নিচ্ছে না কতৃপক্ষ। প্রতিবর্ষা মৌসুমে স্থানীয় আল আমিনের ট্রলারই যাতায়াতের এক মাত্র বাহন তাদের। ঘাটে ঘাটে আল আমিনের মোবাইল নম্বর দেওয়া রয়েছে। ফোন পেলেই ছুটে যায় আল আমিন। বর্ষাকালে আল আমিনই এলাকার মানুষের ভরসা। এলাকাবাসি জানায়, ২০০৮ সালে সংসদ নির্বাচনের সময় আশিয়ার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে এক জনসভায় শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তিনি বিজয়ী হলেই রাস্তাটি পাকা করবেন। তবে সম্প্রতি এ রাস্তার সংযোগ সড়ক গোঘাটা- আশিয়ার সড়কটি এলজিইডির কতৃপক্ষ মাপঝোক করেছিলেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত আর কিছুই এলাকাবাসির চোখে পড়েনি। তবে নেতার প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন না হওয়ায় এলাকাবাসি হতাশ। শিল্পমন্ত্রীর কাছে তাদের দাবি একটাই, টাকা চাই না পয়সা চাই না, রাস্তাা পাকাঁ চাই। এ সড়কের নবগ্রাম মাথায় একটি হাট বসে সপ্তাহে দুই দিন। এছাড়াও রয়েছে পরিবার পরিকল্পনার মা ও শিশুস্বাস্থ্য ক্লিনিক, কৃষি ব্যাংক ও দুটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় রয়েছে। মাঝে মুড়াশাতা গ্রামে একটি প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় রয়েছে। আশিয়ার গ্রামে একটি মাদ্রাসা, একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ও একটি বাজার রয়েছে। অপর প্রান্তে রয়েছে উজিরপুরের পঞ্চগ্রাম হাট, মাধ্যমিক বিদ্যালয় রয়েছে। গগণ গ্রামে রয়েছে হাট ও মাধ্যমিক এবং প্রাথমিক বিদ্যালয়। তবুও পায়ে হেঁটেই যাতায়াত করতে হয় এ অঞ্চলের মানুষদের। বর্ষায় কর্দমাক্ত ভরা রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করতে বিড়ম্বনায় পড়তে হয় শিক্ষার্থীসহ সকলের। ফলে স্কুল কলেজে বর্ষা মৌসুমে উপস্থিতি কমে যায়।সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে পড়তে হয় এসব এলাকার রোগীদের নিয়ে। তাই এসব বাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও ব্যাংকে যাতায়াতের সুবিধার্থে এলাকাবাসি ভরসা শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু এমপিই রাস্তাটি পাকা করবেন বলে এলাকাবাসি মনে করেন। এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ও এলাকার সন্তান খান আরিফুর রহমান জানান, গোঘাটা থেকে আশিয়ার এবং নবগ্রাম থেকে গগণ পর্যন্ত এ সড়কটি নির্মাণ ও পাকা করার দাবি র্দীঘদিনের। এ দাবি পূরণ হলে নবগ্রামও বিনয়কাঠি ইউনিয়নের সব মানুষের উন্নতি সাধনসহ জনসাধারণ ও শিক্ষার্থীরা উপকৃত হবে। বিনয়কাঠির মুড়াশাতা গ্রামের সাংবাদিক জাকির হোসেন ইমন জানান, এলাকাবাসির দুর্ভোগ লাগব ও যাতায়াতের সুবিধার্থে শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু এমপি অচিরেই রাস্তাটি পাকা করবেন বলে তাদের বিশ্বাস। ঝালকাঠি সদর উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলী আরিফ উদ দৌলা জানান, রাস্তাটি পরির্দশন পূবক পাকাকরনের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত হয়েছে। বর্তমানে রাস্তাটি তালিকাভূক্ত রয়েছে। বরাদ্দ পেলে রাস্তাটি পাকাকরনের কাজ শুরু করা হবে।