নাটোরে বিয়ের ৫ দিন পর বাল্যবধূর মরদেহ উদ্ধার

 ২৮ মার্চ ২০১৮ বুধবার ভিডিওসহ দেখতে ক্লিক করুন

অনলাইন ডেস্কঃ

নাটোরের গুরুদাসপুরে বিয়ের পাঁচ দিন পর মিম (১৬) নামে এক বাল্যবধূর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার রাত ৯ টার দিকে গুরুদাসপুর উপজেলার ঝাউপাড়া গ্রামে স্বামী ফরহাদের (২১) বাড়ির পিছন থেকে মাটির নিচে পুতে রাখা মিমের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। 

এ ঘটনায় স্বামী ফরহাদ, তার প্রথম স্ত্রী ইমা বেগম (১৮) ও তার পুর্বের শশুর তফের আলী (৪৭), পুর্বের শাশুরী সুখজানকে (৩৯) আটক করেছে পুলিশ।

এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার উপজেলার হালায়কুল গ্রামের কৃষক মনিরুলের মেয়ে গুরুদাসপুর রোকেয়া গালর্স স্কুলের ৭ম শ্রেণীর ছাত্রী মিমের সাথে পাশ্ববর্তী ঝাউপাড়া গ্রামের তৌহিদুলের ছেলে ফরহাদের সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের পর নববধূ মিমকে তার শ্বশুরবাড়ীতে নিয়ে যায়। কিন্ত গত রবিবার রাত ১ টার দিকে ফরহাদ তার শ্বশুর মনিরুলকে ফোন করে জানায় জীবন নামে এক ছেলের সাথে তার স্ত্রী মিম পালিয়ে গেছে। বিষয়টি কোনভাবেই বিশ্বাস করতে পারেননা মনিরুল তার পরিবারের সদস্যরা। 

পুলিশ সুত্রে জানা যায়, কোথাও মেয়ের খোঁজ না পেয়ে মনিরুল মঙ্গলবার সকালে তার মেয়ে মিমের নিখোঁজ হওয়ার বিষয়টি থানায় লিখিতভাবে জানান। পুলিশ মিমের স্বামী ফরহাদ ও শশুর তৌহিদুলকে আটক করে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে। জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে ফরহাদ স্ত্রীকে হত্যার কথা পুলিশকে বলে। পরে মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে ফরহাদের দেখানো জায়গা থেকে মাটির নিচে পুতে রাখা মিমের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

গুরুদাসপুর থানার ওসি দিলীপ কুমার দাস জানান, ফরহাদ,তার প্রথম স্ত্রী ও আগের শ্বশুর-শ্বাশুরী এই হত্যাকান্ড ঘটিয়ে মিমের মরদেহ বাড়ির পাশে মাটিতে পুতে রাখে। এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে।