লালমনিরহাটে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে এলকাবাসীর অভিযোগ

 ০১ মে ২০১৭, সোমবার সহ দেখতে ক্লিক করুন

এস.এম সহিদুল ইসলাম, লালমনিরহাট :

জেলার হাতীবান্ধা উপজেলার ভেলাগুড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফরিদা পারভীন ( দিলরুবা) বিদ্যালয়ে এসে মুঠোফোনে ব্যাস্ত থাকা ও দায়িত্বে অবহেলা এবং উশৃঙ্খলতায় অতিষ্ট হয়ে এলাকাবাসী প্রধান শিক্ষক এর বিরদ্ধে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার বরাবরে ৫৫ জন অভিভাবকের স্বাক্ষরিত একটি লিখিত অভিযোগ পেশ করেন। জানা যায়, প্রধান শিক্ষক উপজেলার ভেলাগুড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যোগদানের পর থেকে একের পর এক সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে এবং শিক্ষার পরিবেশ ব্যাহত হচ্ছে। ওই বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সামছুল আলমের সহযোগীতায় প্রধান শিক্ষক অর্থ আত্মসাৎ, শিক্ষার্থীদের শারিরীক ও মানসিক নির্যাতন সঠিক সময়ে বিদ্যালয়ে উপস্থিত না থাকার পর ও হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর দেওয়ার ও অভিযোগ উঠেছে প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষক সামছুল আলমের বিরুদ্ধে। সম্প্রতি প্রধান শিক্ষক এর সহযোগীতায় সহকারি শিক্ষক সামছুল আলম কর্তৃক ওই বিদ্যালয়ের এক সহকারী শিক্ষিকা কে উত্ত্যাক্ত ও অশোভন আচরন করেন। প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষক সামছুল আলমের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম, দূর্নীতি তদন্ত পুর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থ্য গ্রহনের দাবী জানান এলাকাবাসী। এ বিষয়ে ওই এলাকার মোঃ স্বপন মিয়া সহ কয়েকজন অভিভাবক এ প্রতিনিধিকে জানান, প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষক সামসুল আলমকে বদলী না করা পর্যন্ত তাদের সন্তানদের বিদ্যালয়ে না পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়াছেন। এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষকের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ হলে তিনি জানান, শুনেছি অভিভাবকরা আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছে। এর বেশী আমি কিছুই জানিনা বলেই ফোন সংযোগ কেটে দেন। সহকারী শিক্ষক সামছুল আলম সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে জানান, আপনাদের সাথে এবিষয়ে পরে কথা হবে। হাতীবান্ধা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার হাসান আতিক বলেন, এলাকাবাসীর অভিযোগ পেয়েছি,এবিষয়ে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্তে শেষে

অভিযুক্ত শিক্ষকদের বিরুদ্ধে প্রযোজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।