নীলফামারীর সৈয়দপুরে দুর্নীতি বিষয়ক দুদকের গণশুনানি অনুষ্ঠিত

 ২০ এপ্রিল ২০১৭, বৃহস্পতিবার সহ দেখতে ক্লিক করুন

জিয়াউর রহমান, নীলফামারীঃ

নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলায় বুধবার দুর্নীতি বিষয়ক এক গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছে। সৈয়দপুর উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে ওই গণশুনানির আয়োজন করে। সৈয়দপুর উপজেলা প্রশাসন ও দুর্নীতি দমন কমিশন দিনাজপুর সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের সহযোগিতায় অনুষ্ঠিত গণশুনানির আগে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কমিশনার (অনুসন্ধান) ড. নাসির উদ্দীন আহমেদ। সৈয়দপুর উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি বিশিষ্ট শিল্পপতি লায়ন মো. নজরুল ইসলালেম সভাপতিত্বে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নীলফামারী জেলা প্রশাসক জাকীর হোসেন, দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) প্রধান কার্যালয়ের পরিচালক (প্রতিরোধ ও গণসচেতনতা) মনিরুজ্জামান, সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদ প্যানেল চেয়ারম্যান আজমল হোসেন ও সৈয়দপুর পৌরসভার মেয়র অধ্যক্ষ আমজাদ হোসেন সরকার ভজে। বক্তব্য রাখেন সৈয়দপুর উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সহ- সভাপতি ও সৈয়দপুর কলেজের অধ্যক্ষ হাফিজুর রহমান হাফিজ।

এ সময় দুদকের রাজশাহী বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক আবদুল আজিজ ভূঁইয়া, দিনাজপুর সমন্বিত কার্যালয়ের উপ-পরিচালক আব্দুল করিম, উপজেলা দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির (দুপ্রক) সকল সদস্যবৃন্দসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন। পুরো আলোচনা সভা ও গণশুনানি সঞ্চালনা করেন সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আবু ছালেহ মো. মুসা জঙ্গী। প্রধান অতিথির বক্তব্যে দুদক কমিশনার ড. নাসির উদ্দীন আহমেদ বলেন, সরকারি সেবা পাওয়া জনগণের সাংবিধানিক অধিকার। কারণ সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বেতন-ভাতা পান জনগণের ট্যাক্সের টাকায়। তাই তাদের (জনগণ) সব রকম সেবা দেওয়া সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী কর্তব্য। তিনি সরকারি-বেসরকারি প্রতিটি সেক্টরে দুর্নীতি বিরোধী কার্যক্রম ছড়িয়ে দিতে হবে। সব সেক্টর থেকে দুর্নীতিকে নিমূলে উৎপাটন করতে হবে। গণশুনানি হচ্ছে সমাজের দায়বদ্ধতা। আর সৈয়দপুরের গণশুনানি হচ্ছে দুদকের ৫১তম গণশুনানি। সৈয়দপুর উপজেলা রংপুর বিভাগকে আলোকিত করছে উল্লেখ করে দুদক কমিশনার আরো বলেন, এ উপজেলা আগামীতে দেশের শ্রেষ্ঠ উপজেলার মর্যাদা পাবে অবশ্যই। আগামী ২০১৮ সালের জুন মাস নাগাদ সৈয়দপুর উপজেলাকে দুর্নীতিমুক্ত উপজেলা হিসেবে ঘোষণা দেওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করে তিনি। পরে দুর্নীতি বিষয়ে গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এতে উপজেলা ভূমি অফিস, উপজেলা সেটেলমেন্ট অফিস, উপজেলা সাব- রেজিস্ট্রি অফিস, উপজেলা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা দপ্তর, উপজেলা হিসাব-রক্ষণ অফিস, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার দপ্তর, উপজেলা সমবায় দপ্তর, উপজেলা সমাজসেবা দপ্তর, উপজেলার মাধ্যমিক দপ্তর, উপজেলা প্রাথমিক দপ্তর, পানি উন্নয়ন বোর্ড, আয়রকর বিভাগ, কাস্টমস্ধসঢ়; ও ভ্যাট বিভাগ, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, বাংলাদেশ রেলওয়ের বিভিন্ন দপ্তর ও সৈয়দপুর পৌরসভায় নিয়ে সেবা গ্রহীতা স্থানীয় জনগণ বিভিন্ন ধরনের অনিয়ম, দুর্নীতি ও কাঙিক্ষত সেবা না পাওয়ার বিষয়ে তাদের অভিযোগ তুলে ধরেন। এ সব সমস্যা দ্রুত সমাধানের জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন দুদক কমিশনার ড. নাসির উদ্দীন আহমেদ। গত কয়েকদিন যাবৎ দুদকের একটি পর্যবেক্ষণ টিম উপজেলার বিভিন্ন সরকারি অফিসের অনিয়ম, দুর্নীতি ও হয়রানির বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করেন। দুর্নীতি ও অনিয়মের বিষয়ে অভিযোগ সংগ্রহের জন্য উপজেলা পরিষদ কার্যালয়ে একটি অভিযোগ বাক্স বসানো হয়েছিল। ওই অভিযোগ বাক্সে সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তার কাছে সেবা নিতে এসে হয়রানির, দুর্নীতি ও অনিয়মের বিষয়ে জনগণকে অভিযোগ দিতে ব্যাপক মাইকিং, পোস্টার ও লিফলেট বিতরণ করে দুদক। সৈয়দপুরের সচেতন মহলের দাবি সৈয়দপুর উপজেলা দুনীতি দমন কমিটিতে কতিপয় দুনীতিবাজ ব্যক্তির স্থান হওয়ায় এনিয়ে বিরুপ মন্তব্য করেন।