নওগাঁয় র‌্যাবের হেফাজতে যুবকের মৃত্যু, পরিবারের দাবি হত্যা

 ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭ শনিবার সহ দেখতে ক্লিক করুন

অনলাইন ডেস্কঃ

নওগাঁর মান্দায় র‌্যাবের অভিযানের সময় এক অস্ত্র ব্যবসায়ী যুবকের মৃত্যু হয়েছে। তার নাম মাজহারুল ইসলাম জিয়াস আলী (৩০)।

তিনি মান্দার কয়বর্তপাড়া এলাকার আনিসুর রহমানের ছেলে। শনিবার ভোর রাতে ওই যুবককে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনা হলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

র‌্যাব-৫ এর জয়পুরহাট ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার মুরাদুল ইসলাম জানিয়েছেন, ওই যুবককে শুক্রবার গভীর রাতে ৬ রাউন্ড গুলিসহ আটক করা হয়। এর মধ্যে তিন রাউন্ড বন্দুকের গুলি এবং তিন রাউন্ড ছিল পিস্তলের গুলি। এরপর জিজ্ঞাসাবাদে জিয়াস আলী জানায়, তার হেফাজতে আরও তিনটি অস্ত্র আছে। সেই অস্ত্র উদ্ধারে র‌্যাব জিয়াসকে নিয়ে অভিযানে নামলে সে বিভিন্ন স্থানে র‌্যাবকে নিয়ে ঘুরায়। এক পর্যায়ে জিয়াস গাড়ির মধ্যে অসুস্থ হয়ে পড়ে। পরে তাকে দ্রুত রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনা হলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। বিষয়টি নিয়ে র‌্যাব জয়পুরহাট ক্যাম্পের পক্ষ থেকেসংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বিস্তারিত জানানো হবে বলেও র‌্যাবের ওই কর্মকর্তা জানান।

এদিকে, জিয়াসের লাশ ময়না তদন্তের জন্য রামেক মর্গে পাঠনো হয়েছে। তার শরীরে কোনো গুলির আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি বলে হাসপাতালের জরুরি বিভাগের একজন চিকিৎসক নিশ্চিত করেছেন।

এ ব্যাপারে নগরীর রাজপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাফিজুর রহমান হাসপাতালের চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে জানান, ওই যুবকের নাম মাজহারুল ইসলাম জিয়াস। তবে হাসপাতালের খাতায় তার নাম লেখা রয়েছে জিয়াস আলী। কীভাবে তার মৃত্যু হয়েছে তা এখনও জানা যায়নি। একজন ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে তার সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করা হয়েছে বলে জানান ওসি।

এদিকে নিহতের ভগ্নিপতি ফোরকান হোসেন জানান, শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টা থেকে ১০টার মধ্যে র‌্যাব পরিচয়ে ১০-১২ জন বাড়িতে ঢুকে জিয়াসকে মারপিট শুরু করে। সেখানেই তার রক্তপাত শুরু হয়। একপর্যায়ে জিয়াস অজ্ঞান হয়ে পড়ে যায়। তারপর র‌্যাব সদস্যরা তাদের জানায়, জিয়াসকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছে। সেখানে শনিবার ভোরে আসার পর তারা মৃত্যু সংবাদ পান।