চিত্রগ্রাহকের প্রেমে মজেছেন চুমকি

 ১ নভেম্বর ২০১৬, মঙ্গলবার   সহ দেখতে ক্লিক করুন

সহশিল্পী নয়, একজন চিত্রগ্রাহকের প্রেমে মজেছেন জনপ্রিয় অভিনেত্রী, নাট্যকার ও নির্মাতা নাজনীন হাসান চুমকি। বেশ কিছুদিন ধরে এই প্রেমকাহিনী নিয়ে মিডিয়াপাড়ায় কানাঘুষা চলছে। শুধু প্রেমে মজেই ক্ষান্ত নন। ওই চিত্রগ্রাহকের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে মেলামেশাও করছেন চুমকি। এটা কোনো নাটকের গল্প নয়। অভিনেত্রী চুমকির বাস্তব জীবনের ঘটনা। তানভীর আনজুম নামের এক চিত্রগ্রাহকের সঙ্গে তিনি প্রেম করছেন অনেকদিন ধরেই। তবে বিষয়টি চুমকি কাউকে কোনোভাবে বুঝতে দেননি। কথায় আছে, ‘প্রেমের খবর বাতাসের আগে ওড়ে’। চুমকির ক্ষেত্রেও তাই ঘটেছে। তিনি না বুঝতে দিলেও ফাঁস হয়ে গেছে খবরটি। সে সূত্র ধরে সত্যতা জানতে আরো অনুসন্ধানে পাওয়া গেছে চিত্রগ্রাহকের সঙ্গে চুমকির বেশকিছু ঘনিষ্ঠ ছবি। আর সব প্রমাণ সংগ্রহ করে মানবজমিনের পক্ষ থেকে তার সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা চালানো হয়। কিন্তু চুমকির গ্রামীণ ও টেলিটক দুটো নাম্বারই বন্ধ পাওয়া যায়। অবশ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ঠিকই পাওয়া গেছে তাকে। সেখানেই কথা হয় চুমকির সঙ্গে। প্রেমের গুঞ্জনের বিষয়ে তাকে প্রশ্ন করা হলে প্রথমে এড়িয়ে যেতে চান। অনেকটা মজারছলেই তিনি বলেন, একসঙ্গে কাজ করতে গেলে দুজন মানুষকে নিয়ে কথা উঠবেই। আর আমার কাছেও খবরটা শুনে বেশ মজা লাগছে। এখানেই চুমকির সঙ্গে কথা শেষ হয়ে যায়নি। প্রেমের খবরটি হেসে উড়িয়ে দিতেই চিত্রগ্রাহক তানভীরের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ ছবির বিষয়টি জানানো হয় তাকে। ফেসবুকের ওই কথোপকথনে দুজনের একটি হৃদ্যতাপূর্ণ ছবি তাকে দেখানো হয়। এরপর চুমকি বলেন, আপনি এই ছবি দিয়ে কি করতে চান সেটা বলেন। আপনি তো নতুন সাংবাদিক নন। আপনাকে আমার কিছু বলার নেই। এমনই মন্তব্য করে নাটকের দৃশ্যায়নে যাওয়ার কথা বলে কথোপকথন শেষ করেন চুমকি। এরপর অবশ্য কাজ শেষ করে চুমকি কথোপকথনে ফিরে আসেন। আবারো প্রশ্ন, প্রেমের গুঞ্জন নিয়ে আপনার মন্তব্য কি? চুমকি বলেন, আপনি যার কাছ থেকে ছবি সংগ্রহ করেছেন তার সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। আপনি তার 

সঙ্গে কথা বলেন। প্রশ্নের সঙ্গে উত্তরের কোনো মিল না পেয়ে সত্যতা নিশ্চিত করার জন্য চুমকিকে আবার প্রশ্ন। সত্যটা কি? তিনি বলেন, আমার যা বলার আমি বলে দিয়েছি। একজন অভিজ্ঞ সাংবাদিক হিসেবে আমাকে কি আর প্রশ্ন করা উচিত? চুমকির এমন মন্তব্যেই অনেকটা পরিষ্কার হয়ে গেছে যে তার ও তানভীরের প্রেমের সম্পর্কটি নিশ্চিত। উল্লেখ্য, মঞ্চ ও টিভি নাটকে অভিনয়ের জন্য বেশ সুখ্যাতি রয়েছে নাজনীন হাসান চুমকির। ১৯৯৯ সালে ‘যেতে যেতে অবশেষে’ নাটকের মধ্যদিয়ে অভিনয় যাত্রা শুরু হয় তার। এর আগে অবশ্য মঞ্চে অনেক কাজ করেছেন তিনি। টিভি ও মঞ্চের পাশাপাশি চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেন চুমকি। ২০০৬ সালে ‘ঘানি’ ছবির জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন এ অভিনেত্রী। স্বামী তুষারকে নিয়ে তার বেশ সুখের সংসারই বলে জানা নিকটজনদের। মিডিয়ায়ও সবাই তাই জানেন। কিন্তু এরপরও স্বামী রেখে চিত্রগ্রাহক তানভীরের সঙ্গে কেন তিনি প্রেমের সম্পর্কে জড়াতে গেলেন সেটা নিয়েই প্রশ্ন উঠেছে অনেকের মনে।