ইউরিক এসিড ও গেঁটে বাত

 ২৪ এপ্রিল ২০১৮ মঙ্গলবার  ভিডিওসহ দেখতে ক্লিক করুন

অনলাইন ডেস্কঃ

গেঁটে বাত বা গাউট হচ্ছে একটি প্রদাহজনিত বাত রোগ। এ রোগে হাড় জোড়া ও আশপাশের টিস্যুতে প্রদাহ হয়ে মনোসোডিয়াম ইউরেট মনোহাইড্রেট ক্রিস্টাল জমা হয়। বয়স বৃদ্ধি ও রক্তে ইউরিক এসিডের মাত্রা বৃদ্ধি পেলে এই রোগের ঝুঁকি বাড়ে। সাধারণত মহিলাদের তুলনায় পুরুষদের এই রোগ পাঁচ গুণ বেশি হয়। মানবদেহে ইউরিক এসিডের এক-তৃতীয়াংশ আসে খাবারের মাধ্যমে এবং দুই-তৃতীয়াংশ অভ্যন্তরীণ পিউরিন বিপাকের ফলে। শতকরা ৯০ ভাগ গাউট রোগীর ক্ষেত্রে ইউরিক এসিড নিষ্কাশনে সমস্যা থাকে। ১০ শতাংশ ক্ষেত্রে শরীরে বেশি ইউরিক এসিড তৈরি হয়।

কীভাবে বুঝবেন : ১. সাধারণত একটি জয়েন্টে তীব্র ব্যথা হয়। তবে একসঙ্গে একাধিক জয়েন্ট আক্রান্ত হতে পারে। ২. ৫০% ক্ষেত্রে পায়ের বৃদ্ধাঙ্গুলি আক্রান্ত হয়। ৩. সাধারণত রাতে বেশি আক্রান্ত হয়। খুব দ্রুত ব্যথা শুরু হয়ে ২-৬ ঘণ্টার মধ্যে তীব্র আকারে ধারণ করে। প্রায়শই ভোরে ব্যথায় ঘুম ভেঙে যায়। রোগী পায়ের মোজা ও জুতা ব্যবহার করতে পারে না। অবষাদগ্রস্ততা থাকতে পারে।

চিকিৎসা : রিহেব-ফিজিও অত্যন্ত কার্যকরী।  আক্রান্ত জোড়ার ঠাণ্ডা সেক বা বরফ পানির সেক উপকারে আসে। ওষুধ বিশেষজ্ঞের পরামর্শে খাওয়া যেতে পারে। ইউরেটের পরিমাণ মাত্রার মধ্যে রাখতে হবে।

ডা. মো. সফিউল্লাহ প্রধান

চেয়ারম্যান, ডিপিআরসি হাসপাতাল, ঢাকা।