স্ট্রোকের উপসর্গ ও প্রতিকার

 ২৮ অক্টোবর ২০১৭ শনিবার ভিডিওসহ দেখতে ক্লিক করুন  

অনলাইন ডেস্কঃ

আগামীকাল বিশ্ব ‘স্ট্রোক’ দিবস। অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও পালিত হবে এ দিনটি।

স্ট্রোক নিয়ে সচেতনতা আরও বাড়াতে হবে। প্রায়ই লক্ষ করা যায়, কেউ কেউ দেহের ছোট-খাটো বিষয়ে অবহেলা করে থাকেন। যা মোটেও কাম্য নয়। হঠাৎ সামান্য মাথা ঘুরে যাওয়া বা চোখে ঝাপসা দেখাকে আমরা অনেক সময় উপেক্ষা করে থাকি। কিন্তু এগুলোই আবার ছোটখাটো স্ট্রোকের লক্ষণও হতে পারে। এমনকি পরবর্তীতে বিরাট স্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়ার পূর্বলক্ষণও হতে পারে। মিনি স্ট্রোক হয়েছে এমন ১২ জনের একজন এক সপ্তাহের মধ্যে মারাত্মক এবং স্থায়ী পঙ্গুত্বের শিকার হবেন এটা এখন স্বীকৃত। যাদের পূর্ণাঙ্গ স্ট্রোক হয়েছে তাদের মধ্যে এক তৃতীয়াংশ এক বছরের মধ্যে মারা যান এবং এক তৃতীয়াংশ স্থায়ী পঙ্গুত্বের শিকার হন। পৃথিবীতে প্রতি বছর প্রায় দেড় কোটি মানুষ স্ট্রোক আর হার্ট অ্যাটাকে মারা যান। তবে সৌভাগ্যক্রমে খুব সহজ অপারেশন দিয়ে মিনি স্ট্রোক থেকে পুরো স্ট্রোক হওয়া বন্ধ করা যায়। স্ট্রোক আর মিনি স্ট্রোকের উপসর্গ একই রকম। চোখে ঝাপসা দেখা, কথা জড়িয়ে যাওয়া, আর শরীরের এক দিকে বা একটা হাতে বা পায়ে দুর্বলতা। মিনি স্ট্রোকে এই উপসর্গগুলো ২৪ ঘণ্টার মাঝেই সেরে যায়। অন্যদিকে পুরো স্ট্রোকে একজন রোগী জীবনের জন্য পঙ্গু ও বোবা হয়ে যেতে পারেন। উভয় ক্ষেত্রেই মূল কারণ হচ্ছে মস্তিষ্কে অক্সিজেনের অভাব আর এটা হয়ে থাকে, ক্যারোটিড আর্টারি সরু হয়ে যাওয়ার জন্য। আর এটা হয় মূলত ক্যারটিড আর্টারির মধ্যে কোলেস্টেরল জমে যাওয়ার জন্যই। মস্তিষ্কের রক্ত নিয়ে যায় ক্যারটিড আর্টারি আর এর দেয়ালে চর্বি জমে এই ক্যারটিড আর্টারি ক্রমান্বয়ে সরু হতে থাকে। এক সময় এই চর্বির পর্দা ফেটে গিয়ে রক্তনালির ভিতর ঘা হয়ে যায়। এই ঘায়ের ওপর আবার রক্ত জমাট বাঁধে আর হঠাৎ করে এক টুকরো জমাট রক্ত ভেঙে মস্তিষ্কে আটকা পড়ে এবং স্ট্রোকের এটাই মূল কারণ। চর্বির এই স্তর সরিয়ে ফেলার অপারেশনকেই ক্যারটিড অ্যান্ডারটারেক্টমি বলা হয়।

ক্যারটিড অ্যান্ডারটারেক্টমি অপারেশনে কানের লতি থেকে নিচের দিকে চার ইঞ্চি লম্বা একটা কাটা দিয়ে, ক্যারটিড আর্টারির মধ্যে জমে থাকা ময়লা বের করে নিয়ে আসা হয়।