অস্ত্রের মুখে জিম্মি কিম কারদাশিয়ান!

 ৩ অক্টোবর  ২০১৬, সোমবার   সহ দেখতে ক্লিক করুন

হাল আমলে পশ্চিমা দুনিয়া কাঁপানো সেলিব্রেটি কিম কারদাশিয়ানকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করা হয়েছিল রোববার দিবাগত রাতে। সেক্স বোম হিসেবে পরিচিতি পাওয়া এই সেলিব্রেটি বর্তমানে প্যারিসে অবস্থান করছেন। তিনি পরিবারের সদস্যদের নিয়ে সেখানে প্যারিস ফ্যাশন উইকে যোগ দিতে এসেছেন। উঠেছেন একটি হোটেলে। কিন্তু সেখানেই গত রাতে ঘটে গেছে ওই বিপত্তি। কিম কারদাশিয়ানের মুখপাত্র বলেছেন, রোববার রাতে অস্ত্রের মুখে কিম কারদাশিয়ান ওয়েস্টকে তার প্যারিস হোটেল কক্ষে জিম্মি করেছিল অস্ত্রধারী দু’ব্যক্তি। এ সময় তারা ছিল মুখোশধারী। তাদের পোশাক ছিল পুলিশ কর্মকর্তাদের মতো। এ অবস্থায় কিম ভীষণভাবে ভয় পেয়ে গিয়েছিলেন। তবে তার কোনো শারীরিক ক্ষতি হয় নি। এ খবর দিয়েছে অনলাইন সিএনএন। এতে বলা হয়, কিম কারদাশিয়ান তার মা ক্রিস জেনার, দু’বোন কোর্টনি কারদাশিয়ান ও কেনদাল জেনারকে সঙ্গে নিয়ে প্যারিসে এসেছেন। তার স্বামী র‌্যাপার কেনি ওয়েস্ট রোববার রাতে মিডো ফেস্টিভালে যোগ দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু তিনি তড়িঘড়ি করে সেখান থেকে তিনি চলে এসেছেন। কনসার্টের আয়োজকদের বলেছেন, পারিবারিক জরুরি অবস্থার কারণে তাকে ফিরে যেতে হচ্ছে। এ জন্য মিডোস এনওয়াইসির অফিসিযাল টুইটার একাউন্টে নিশ্চিত করা হয়েছে, কেনি ওয়েস্ট তার স্টেজ পারফরমেন্স শেষ করতে আসছেন না। ওদিকে কনসার্টে যেসব লোক উপস্থিত ছিলেন তারা কেনি ওয়েস্টের দ্রুত সে স্থান ত্যাগ করার দৃশ্য ধারণ করেছেন ভিডিওতে। কেনি ওয়েস্ট বলেছেন, সরি গাইস। পারিবারিক জরুরি প্রয়োজননে আমাকে এখনি এই শো থেকে চলে যেতে হচ্ছে। এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন সিএনএনের ফ্রাঙ্ক পালোত্তা। তিনি টুইটে লিখেছেন, কেনি ওয়েস্টের এভাবে চলে যাওয়ায় অনেকে কষ্ট পেয়েছেন। কিন্তু কেন তিনি এভাবে চলে গেলেন সে বিষয়ে ব্যাখ্যা পাওয়া যায় নি। শুধু বলা হয়েছে পারিবারিক ইমার্জেন্সির জন্য তাকে চলে যেতে হচ্ছে। ওদিকে রোববার রাতে কিমকে এভাবে জিম্মি করার মাত্র কয়েক ঘন্টা আগে তিনি যোগ দিয়েছিলেন গিভেনসি রানওয়ে শোতে। সেখানে স্টেজ শোতে অংশ নেন তার বোন কেনদাল। ওদিকে অনলাইন ডেইলি মেইল লিখেছে, গত রাত ৩টা থেকে ৪টার মধ্যে এ ঘটনা ঘটে। তবে কিভাবে ওই জিম্মি দশার শেষ হয়েছে সে বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানা যায় নি। তার কাছ থেকে কোন মূল্যবান জিনিস ছিনতাই করেছে কিনা ওই দু’অস্ত্রধারী তাও জানা যায় নি। তবে এ বিষযে পুলিশ কোনো মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে।