আটকের পর আসামি ছেড়ে দেওয়ার জের, অবশেষে আরএনবির সেই ৬ সদস্যকে বদলি

অবশেষে রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর (আরএনবি) দায়িত্বরত বির্তকিত হাবিলদার এবং ৪ জন সিপাহীকে বদলি করা হয়েছে। বুধবার রাতে সহকারী কমান্ড্যান্ট (সদর) মুজিবুল হক বদলির এই আদেশ দেন বলে অফিস সূত্রে নিশ্চিত করা হয়েছে।

এর আগেই আরেক বির্তকিত আরএনবির পরিদর্শক ইসরাফিল মৃধাকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর সূত্রে জানা গেছে, রেলওয়ের এক প্রকৌশলীর সহযোগিতায় অবৈধভাবে রেলের গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন সরঞ্জাম পাচারকালে ৪ জনকে আটক করা হয়। এরপর এক আসামিকে মুচলেখা দিয়ে ছেড়ে দেওয়ার ঘটনায় আইন লঙ্ঘনসহ নানাবিধ আলোচনার সৃষ্টি হয়। উঠে আসে ইসরাফিল মৃধা ও আবদুল্লাহ আল নোমানের দীর্ঘ কয়ে বছর ধরেই নানা অবৈধ অপকর্মের চিত্র। এতে নানা ঘটনার জের ধরেই পাহাড়তলীর স্টোরসে দায়িত্বরত আরএনবির প্রধান পরির্দশ ইসরাফিল মৃধাকে (২৮ জুন) বরখাস্ত এবং বুধবার বির্তকিত হাবিলদার আবদুল্লাহ আল নোমান, রাকিব হোসেন তালুকদার এবং দায়িত্বরত আল আমিন, বশর, মুমিনুল ইসলাম ও রাকিব হোসেনসহ ৪ জন সিপাহীকে ঢাকা, সিজিপিওয়াই, সিআরবিতে বদলি করা হয়।

পূর্বাঞ্চল রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর (সিসিআরএনবি) চিফ কমান্ড্যান্ট মো. জহিরুল ইসলাম  বলেন, পাহাড়তলীতে চার আসামিকে আটকের পর নিয়ম লঙ্ঘন করে একজন ছেড়ে দেওয়ায় দায়িত্বশীল কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে। এ ঘটনায় পাহাড়তলী স্টোরসে দায়িত্বশীল হাবিলদার ও সিপাহীদেরও অন্যত্র বদলি করা হয়েছে। তবে অনিয়ম দুর্নীতিসহ নানা অনিয়ম ও অবৈধ কর্মকাণ্ড ঠেকাতে রেলওয়ে প্রশাসন কঠোরভাবে কাজ করে আসছে। অনিয়মের সঙ্গে জড়িত যেই হোক না কেন, তাকে আইনের আওতায় আনা বলে বলে জানান তিনি।

অভিযোগ আছে, সাবেক সিসিআরএনবি ইকবাল হোসেনের একনিষ্ঠ এবং নিকটাত্মী ইসরাফিল মৃধা ও আরএনবির বর্তমানে ঊর্ধ্বতন দায়িত্বশীল কর্মকর্তার ঘনিষ্টজন হিসেবে পরিচিত হাবিলদার আবদুল্লাহ আল নোমান দীর্ঘ দিন ধরেই রেলের মালামাল বিক্রয়, পাচারসহ নানা কৌশলে অপরাধীদেরকে সহযোগিতা করে আসছে, যা রেলের আরএনবিসহ বিভিন্ন অঙ্গনে আলোচিত। একইভাবে আরও বিভিন্ন স্থানেও নানা অপরাধ সংঘটিত হয়ে আসছে। অতীতে সিসিআরএনবি ইকবাল হোসেনের আমলেও নানা অপকর্মের চিত্র আলোচনার সৃষ্টি হয়েছে। তবে চিহ্নিতদের বদলিসহ নানা শাস্তি না দিলে অপরাধ কোনওভাবেই কমবে না বলে জানান রেল সংশ্লিষ্টরা।

জানা গেছে, গত ২৭ জুন পাহাড়তলী সেলডিপুতে সহকারী প্রকৌশলী (স্টোর) মো. ইউনুসের সহায়তায় অবৈধভাবে রেলের সরঞ্জাম পাচারকালে ৪ জনকে আটক করে রেলের নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা। এদের মধ্যে একজনকে ছেড়ে দেন সেলডিপুতে দায়িত্বরত প্রধান পরিদর্শক ইসরাফিল মৃধা, যা আইনবিরোধী। ফলে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। তার স্থানে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হিসেবে কারখানা শাখার চিফ ইন্সপেক্টর রেজওয়ানুর রহমানকে দায়িত্ব দেওয়া হয়।

 

আরও পড়ুন