আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক পদ নিয়ে নানা গুঞ্জন!

আসন্ন অক্টোবরেই আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক ২১তম জাতীয় সম্মেলন। তবে এবারও নবমবারের মতো দলীয় প্রধানের পদে সভাপতি হিসেবে থাকছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কিন্তু গুঞ্জন শুধু সাধারণ সম্পদকের পদের প্রাপ্তি নিয়েই। এদিকে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরর পরিবর্তনের বিষয়ে দলের ভিতরে-বাইরে বইছে আলোচনা। অবশ্য সাধারণ সম্পাদক পদটি পেতে দলের মধ্যে আকাঙ্ক্ষার শেষ নেই। যদিও সরাসরি কেউ কখনও দাবি করেননি।

এদিকে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের অনেকের মাঝেই সাংগঠনিক তৎপরতায় ফুটে ওঠেছে তাদের পদ প্রাপ্তির বিষয়টি। তবে সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদক পদে কাউন্সিলরদের ভোটের ফলাফলের প্রতিফলন ঘটে অনেকটা কেন্দ্রের পছন্দের ওপর। কেন্দ্র থেকে স্থানীয় বা তৃণমূল পর্যায়ে যে বার্তা পাঠানো হয়, তার উপর কাউন্সিলরা ভোটের মাধ্যমে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করেন। এবারও তার ব্যতিক্রম হবে না বলে জানিয়েছেন দলের একাধিক সাংগঠনিক সম্পাদক।
আ’লীগের অধিকাংশ রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, দলের মধ্যে গ্রহণযোগ্যতা, রাজনৈতিক দূরদর্শিতা সর্বোপরি ব্যক্তির যোগ্যতার উপর বিবেচনায় দলের দ্বিতীয় পদটিতে কে বসবেন তা নির্ধারণ করা হতে পারে।

তবে দৌড়ে এগিয়ে আছেন বর্তমান সাধারণ সম্পাদাক ওবায়দুল কাদের। তবে দলের বড় অংশ বলছে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের মাঝে বড় ধরনের চমক আসছে। বিশেষ করে ওবায়দুল কাদেরকে হয়তো দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দিয়ে শুধু মন্ত্রী হিসেবেই রাখা হতে পারে। এক্ষেত্রে মাহবুব-উল-আলম হানিফ সাধারণ সম্পাদক হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে। এছাড়া আলোচনায় আছেন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবীর নানক ও আব্দুর রহমান এবং সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক।

আওয়ামী লীগের দলীয় সূত্রে থেকে জানা গেছে, সম্মেলনে সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই থাকছেন, তবে সাধারণ সম্পাদক পদে পরিবর্তন আসছে। আসবেন নতুন মুখ সে ক্ষেত্রে হানিফ অথবা আব্দুর রাজ্জাক। সভাপতি মণ্ডলী, সম্পাদক মণ্ডলী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকসহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ পদগুলোতে বেশ কিছু নতুন মুখ আসবে। এবং বাদ পড়বেন বর্তমান কমিটির অনেকেই। তবে গুরুত্বপূর্ণ এসব পদের কারা বাদ পড়বেন বা নতুন কারা আসবেন সে ব্যাপারে এখনও চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে দলের ভেতর যারা কোন্দল সৃষ্টির জন্য দায়ী, তাদের পদ কেড়ে নেওয়ার গুঞ্জন রয়েছে।

এদিকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের প্রার্থীতার বিষয়ে ‍মাহবুব-উল-আলম হানিফের কাছে জানতে চাইলে বলেন, এবিষয়ে আমি কিছু বলতে চাই না। আর আমি সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী একথা কোথাও বলিনি। নেত্রীর ইচ্ছাই চূড়ান্ত হবে। এর বেশি কিছু জানি না।

আরও পড়ুন