ঈদের ছুটিতে দেশে, ভয়ংকর রূপ নিতে পারে ডেঙ্গু

এবার ঈদের ছুটির সময় ডেঙ্গু সারাদেশে ভয়ংকার রূপ নিতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন চিকিৎসকরা। কারণ ঈদের ছুটিতে রাজধানী ছাড়বেন লাখো মানুষ। এতে ঢাকার বাইরে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা ও প্রকোপ বাড়ার সম্ভাবনা আছো তাই সবমহলের সচেতনতা আর সতর্কতা ছাড়া এর বিস্তার ঠেকানো সম্ভব নয় বলেও জানা তারা।

এর আগে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ গত ২৭ জুলাই ঢাকায় তাঁর দপ্তরে জ্বর নিয়ে কাউকে ঢাকা না ছাড়ার পরামর্শ দেন।

চট্টগ্রামে গতকাল শনিবার নতুন করে ৩৩ জন ডেঙ্গু রোগী পাওয়া গেছে। এ নিয়ে মোট সংখ্যা দাঁড়াল ২৬৩ জনে। ডেঙ্গু রোগীদের মশারির ভেতরে রাখার বিষয়ে গুরুত্বারোপ করছেন চিকিৎসকেরা।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিচালক হাসান শাহরিয়ার কবির গতকাল বলেন, ডেঙ্গু রোগীকে মশারির মধ্যে রাখতে হবে। কারণ, ডেঙ্গু রোগীকে কোনো এডিস মশা যদি কামড় দিয়ে পুনরায় অন্য কাউকে কামড় দেয় তাহলে তারও ডেঙ্গু হবে। ঢাকায় আসা–যাওয়া ছাড়াও স্থানীয়ভাবেও কিছু কিছু ডেঙ্গু আক্রান্ত ব্যক্তি পাওয়া যাচ্ছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

চিকিৎসকেরা বলছেন, চট্টগ্রামে যেসব ডেঙ্গু রোগী পাওয়া গেছে তার মধ্যে প্রায় ৮০ শতাংশ ঢাকায় আসা–যাওয়ার কারণে আক্রান্ত। স্থানীয়ভাবে এডিস মশার কামড়েও ডেঙ্গু হচ্ছে। চিকিৎসকেরা জানান, ডেঙ্গু সারা বছরের রোগ। কিন্তু বর্ষাকালে এডিস মশার উপদ্রব বাড়ার কারণে এর ঝুঁকি বেড়ে যায়।

এরই মধ্যে চট্টগ্রাম নগর ছাড়াও চন্দনাইশ, পটিয়া, বোয়ালখালী, সীতাকুণ্ড, হাটহাজারী উপজেলায় ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী পাওয়া গেছে।

চিকিৎসকরা আরও বলছেন, ঈদের ছুটিতে সারাদেশেই ডেঙ্গুর প্রকোপ বাড়ার শঙ্কা রয়েছে। তবে, এজন্য সরকারি হাসপাতাল ও মেডিকেলে সব ধরনের প্রস্তুতি রাখা হয়েছে।

সবাইকে সচেতন থাকার পরামর্শ দিয়েছেন জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক অসীম কুমার নাথ বলেন, জ্বর হলেই চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া দরকার। সব জ্বর ডেঙ্গু নয়। তারপরও ডেঙ্গু নিশ্চিত হওয়ার পর এক জায়গায় থাকা উচিত। এতে এর বিস্তার ঠেকানো সম্ভব।

জেলা সিভিল সার্জন আজিজুর রহমান সিদ্দিকী বলেন, মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ ডেঙ্গুর বিস্তার রোধে ঈদে জ্বর নিয়ে কাউকে বাড়ি ঘরে যেতে নিষেধ করেছেন। এটি মানা হলে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণ সহজ হবে।

আরও পড়ুন