এত ভয়ঙ্কর ঝড় আগে দেখেনি আটলান্টিক, ২২০ কিমি বেগে আছড়ে পড়ল

আশঙ্কা ছিল গত কয়েকদিন ধরেই। অবশেষে বাহামায় আছড়ে পড়ল সেই ভয়ঙ্করতম ঝড়। ডোরিয়ান নামের ওই ঘূর্ণিঝড় এতটাই ভয়াবহ যে তাকে ‘ক্যাটাগরি ৫’-এ ফেলেছেন বিশেষজ্ঞরা। এর আকার যে কতটা ভয়ঙ্কর হতে পারে সে ব্যাপারে সতর্ক করেছেন খোদ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

আটলান্টিক সাগর থেকে সেই ঘূর্ণিঝড় ডোরিয়ান ৪ মাত্রার শক্তি অর্জন করে। পরে সেটি ৫ মাত্রায় পৌঁছেছে বলে জানা যায়। ঘূর্ণিঝড়ের খবর জানিয়েছে আমেরিকার ন্যাশনাল হারিকেন সেন্টার বা এনএইচসি।

তথ্য বলছে, ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ২২০ কিলোমিটার গতি নিয়ে ঝড়টি বাহামা দ্বীপপুঞ্জের দিকে অগ্রসর হয়। ফ্লোরিডায় আঘাত করার আগে ডোরিয়ান আরও শক্তি অর্জন করতে পারে বলেও পূর্বাভাসে সতর্ক করেছে মার্কিন আবহাওয়া বিভাগ। এর জেলে বাহামায় ব্যাপক বন্যা হতে পারে বলেও সতর্ক করা হয়েছে। হবে প্রবল বৃষ্টিও। আটলান্টিকে এত ভয়ঙ্কর ঝড় আগে হয়নি বলে জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

শেষ পাওয়া খবরে জানা গিয়েছে, স্থানীয় সময় ঠিক রাত ১১টায় বাহামায় আছড়ে পড়ে সেই ঝড়। ঝড়ের গতিবেগ ১৮০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা হয় তখন।

এর আগে ১৯৯২ সালে আমেরিকার দক্ষিণপূর্বে আছড়ে পড়া ৫ মাত্রার ঘূর্ণিঝড় অ্যান্ড্রুতে নিহত হয় ৬৫ জন। ধ্বংস হয়ে যায় প্রায় ৬৩ হাজার বাড়িঘর। অ্যান্ড্রুর পর ডোরিয়ানই ফ্লোরিডায় আঘাত হানা সবচেয়ে শক্তিশালী ঝড় হতে পারে বলে শঙ্কা আবহাওয়াবিদদের।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট আটলান্টিক সাগর তীরবর্তী অঞ্চলে জরুরি অবস্থা জারি করেছেন। এলাকার বাসিন্দাদের কাছে এক সপ্তাহের খাদ্য, পানীয় ও ওষুধ মজুদ করতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

ফ্লোরিডার গভর্নর রন ডেসান্টিস ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় ন্যাশনাল গার্ডের আড়াই হাজার সদস্য মোতায়েন করেছেন। প্রস্তুত রাখা হয়েছে আরও দেড় হাজার সেনাকে। ঝড়টি ‘সত্যিকারের দানবের আকার নিতে পারে’ বলে সতর্ক করেছেন ট্রাম্প। এ খবর দিয়েছে কলকাতা২৪।

সতর্কতাস্বরূপ সোমবার স্থানীয় সময় ২ টো থেকে সব ফ্লাইট বন্ধ রাখার ঘোষণা করা হয়েছে অরল্যান্ডো বিমানবন্দরে। কোথাও কোথাও সমুদ্রের জল ১০ থেকে ১৫ ফুট পর্যন্ত উঠতে পারে।

আরও পড়ুন