করোনা মোকাবেলায় চীনের অবিশ্বাস্য সাফল্যের রহস্য ফাঁস!

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের বিষাক্ত ছোবলে কাঁপছে গোটা বিশ্ব। ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বের ২ শতাধিক দেশে। এর প্রকোপে ইউরোপের দেশ ইতালি ও স্পেন পরিণত হয়েছে ভয়ঙ্কর মৃত্যুপুরীতে। এছাড়া ফ্রান্স, যুক্তরাজ্য এবং যুক্তরাষ্ট্রও মৃত্যুপুরী হওয়ার পথে।

প্রাণঘাতী এই ভাইরাসটির উৎপত্তি হয়েছিল চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকে। বেশ কিছু দিন সেখানে তাণ্ডব চালালেও বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে এসেছে।

কিন্তু কীভাবে এত অল্প সময়ে এই প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব নিয়ন্ত্রণে আনল চীন?

এ কারণে অনেকেরই সন্দেহ, চীনারা গোপনে করোনাভাইরাস মোকাবেলার পথ বের করে ফেলেছে। এ ধারণা যে একেবারে অমূলক নয়, সম্প্রতি তা নিশ্চিত করল চীনের ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টি পরিচালিত সংবাদপত্র গ্লোবাল টাইমস।

রবিবার সংবাদমাধ্যমটি এক টুইটবার্তায় জানিয়েছে, করোনাভাইরাস ঠেকাতে কোনও ওষুধ বা প্রতিষেধক নয়, বরং নতুন এক ধরনের ন্যানোম্যাটেরিয়াল আবিষ্কার করেছেন চীনা গবেষকরা। এটি যেকোনও ভাইরাস মোকাবেলায় ৯৯ দশমিক ৯ শতাংশ পর্যন্ত কার্যকরী হতে পারে। নতুন ন্যানোম্যাটেরিয়ালটি যেকোনও ভাইরাস শুষে নিতে বা অকার্যকর করে দিতে পারে।

সাধারণত বিভিন্ন ধরনের পণ্য তৈরি, প্রস্তুতকরণ প্রক্রিয়া, রং, ফিল্টার, লুব্রিকেন্টসহ স্বাস্থ্যসেবাতেও ন্যানোম্যাটেরিয়াল ব্যবহার করা হয়। স্বাস্থ্যখাতে ব্যবহৃত ন্যানোজাইমস একপ্রকার ন্যানোম্যাটেরিয়াল, যা অনেকটা এনজাইমের মতো আচরণ করে।

চীনা সংবাদমাধ্যমের দাবি, এরই মধ্যেই ওই গবেষক দল দেশটির বিভিন্ন সংস্থার সঙ্গে কথা বলেছে এবং এই ন্যানোম্যাটেরিয়াল দিয়ে মাস্ক ও পিপিই (পারসোনাল প্রটেকটিভ ইক্যুয়িপমেন্ট) বানানোর পরামর্শ দিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হেলথের (এনআইএইচ) মতে, বিজ্ঞানীরা এখনও ন্যানোম্যাটেরিয়ালের প্রকৃত সংজ্ঞা নির্ধারণ করেননি। তবে এটিকে ন্যানোমিটারে পরিমাপ করে এর আংশিক চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের বিষয়ে একমত হয়েছেন তারা। ক্যান্সার কোষ ধ্বংস বা এর থেরাপির কার্যকারিতা বৃদ্ধির মতো বিষয়গুলোতে এটি ব্যবহার করা যেতে পারে বলে বিশ্বাস তাদের।

এনআইএইচ জানিয়েছে, যদিও ন্যানোম্যাটেরিয়ালের যথেষ্ট উপকারিতা আছে, তবে মানবদেহ এবং পরিবেশের ওপর এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কী সে বিষয়ে এখনও খুব বেশি কিছু জানা যায়নি। উদাহরণস্বরূপ তারা বলছে, রূপার মতো পরিচিত ধাতব কণাও ন্যানো-আকারে নিয়ে গেলে সেটি ভয়াবহ প্রতিক্রিয়া তৈরি করতে পারে।

আরও পড়ুন