গাজীপুরে ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে হামলায় ৪০ জনের বিরুদ্ধে মামলা

গাজীপুরে ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে বহিরাগতদের হামলার ঘটনায় মামলা করা হয়ছে। গাজীপুর সদর মেট্রো থানায় রোববার রাত সাড়ে ৮টার দিকে স্থানীয় সন্ত্রাসী আশিকসহ ৩০-৪০ জন অজ্ঞাতনামা আসামির বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করছেন মামলার বাদি ইন্সটটিউিট অব টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি (আই-টেইট)-এর অধ্যক্ষ মো. শহিদুল ইসলাম।

পুলশি ও স্থানীয় সূত্র জানায়, গাজীপুর শহরের বঙ্গতাজ অডিটরিয়ামে শনিবার সন্ধ্যায় একটি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের নবীনবরণ অনুষ্ঠানে বহিরাগত যুবকদের হামলা ও ভাংচুর চালায়।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গাজীপুর শহরের বঙ্গতাজ অডিটরিয়ামে মহানগরীর কোনাবাড়ি এলাকার ইন্সটিটিউট অব টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি (আই-টেইট) কলেজের নবীনবরণ ও বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে ওইদিন সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান চলাকালে স্থানীয় রথখোলা এলাকার এক যুবক অডিটরিয়ামে প্রবেশের চেষ্টাকালে তাকে বাধা দেয়া হয়। এতে ওই যুবক ক্ষুব্ধ হয়ে আরো দুইজন সঙ্গী নিয়ে আবার অডিটরিয়ামে আসে।

এসময় ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক নাজমুল ইসলামের সঙ্গে বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে তারা ওই শিক্ষককে মারধর শুরু করে। এর প্রতিক্রিয়ায় ওই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা তিন যুবককে পাল্টা মারধর করে।

পরে মারপিটের শিকার তিন যুবক বাহিরে গিয়ে আবার সংগঠিত হয়ে ২৫-৩০জন যুবকসহ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ওই অডিটরিয়ামের ভিতরে হামলা চালিয়ে নির্বিচারে মারপিট ও এলোপাথারি কোপায়। এসময় যুবকরা সাউন্ড সিস্টেম, অডিটরিয়ামের চেয়ার, দরজা-জানালার কাঁচ ও আসবাবপত্র ব্যাপক ভাঙচুর করে। তাদের এলোপাথারি হামলায় ওই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী, শিক্ষক, অভিভাবক, কর্মচারীসহ অন্তত ২০জন আহত হয়েছে।

আহতদের মধ্যে ৫জনকে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি এবং গুরুতর আহত শিক্ষার্থী মৃদুল (২০) ও সৌরভকে (১৭) ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে প্ররেণ করা হয়েছে। হামলাকালে অডিটরিয়ামের ভেতর ব্যাপক আতংক ছড়িয়ে পড়ে।

খবর পেয়ে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারি কমিশনার মো. সোহরাব হোসনের নেতৃত্বে পুলশি ঘটনাস্থলে গেলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়।

আরও পড়ুন