ঘোড়াঘাট ইউএনওর বাসায় কোনো টাকা পাওয়া যায়নি

দিনাজপুরের ঘোড়া-ঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়াহিদা খানম ও তার পিতা মুক্তিযোদ্ধা ওমর আলী শেখের ওপর হামলা মামলায় সর্বশেষ গ্রেফতার সাময়িক বরখাস্তকৃত কর্মচারী (মালি) রবিউল ইসলামকে সাত দিনের রিমান্ড শেষে আজ বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) আদালতে হাজির করা হবে।

তবে আদালতে তার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি নেওয়া হবে কি না, অথবা তাকে আবার রিমান্ডে নেওয়া হবে কি না—গতকাল বুধবার বিকাল পর্যন্ত সে সম্পর্কে নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারেননি মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। এদিকে গত ১৩ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় দিনাজপুরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শাহানুর রহমানের উপস্থিতিতে মামলার বাদী ইউএনওর ভাই শেখ ফরিদউদ্দীনকে নিয়ে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ। সেখান থেকে ইউএনওর ব্যবহার্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ও কাপড়চোপড় উদ্ধার করে ইউএনওর ভাইয়ের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

এসময় ইউএনওর বাড়ি থেকে কোনো টাকা উদ্ধার করা হয়েছে কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে দিনাজপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বলেন, ইউএনওর বাড়িতে কোনো টাকা পাওয়া যায়নি। ঘোড়াঘাট থানার ওসি আজিমউদ্দীনও জানান, আমি সার্বক্ষণিক ছিলাম; কিন্তু কোনো টাকা উদ্ধার করা হয়নি।

বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) বিকালে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দিনাজপুর ডিবি পুলিশের ওসি ইমাম জাফর জানান, এ মামলায় এখন পর্যন্ত কোনো আসামির জবানবন্দি রেকর্ড করা না হলেও আদালতের মাধ্যমে তিন সাক্ষীর ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়েছে। এর মধ্যে গত মঙ্গলবার দুই সাক্ষীর এবং গত ১২ সেপ্টেম্বর অপর সাক্ষীর জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়। এছাড়া মামলার অপর চার আসামি বর্তমানে দিনাজপুর জেলহাজতে রয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত ২ সেপ্টেম্বর বুধবার দিবাগত রাতে সরকারি বাসভবনে ঢুকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও তার পিতাকে নির্মমভাবে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে জখম করে দুর্বৃত্তরা।

 

 

আরও পড়ুন