চিত্রনায়িকা শাবনূরের মৃত্যুর গুজব

বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা শাবনূর মারা গেছেন বলে গতকাল সোমবার (২৯ জুলাই) থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব ছড়িয়েছে। এমন খবরে আতংকিত হয়ে পড়েছে চিত্রপাড়া।

শাবনূর বর্তমানে অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে মী-সন্তান নিয়ে বসবাস করছেন। সেখানে তিনি সুস্থ আছেন বলেই জানা যায়। তার সম্পর্কে যা ছরিয়েছে সেটা পুরোই গুজব ও মিথ্যা। শাবনূরের বোন ঝুমুর জানান, শাবনূরের মৃত্যুর খবরটি মিথ্যে। এমন মিথ্যা সংবাদে একটা পরিবারের উপর অনেক প্রেসার যায়। এমন গুজব রটনাকারীদের ওপর চটেছেন শাবনূরের পরিবার।

ঝুমুর বলেন, ‘ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এখন যেকোন বিষয় খুব দ্রুত ছড়িয়ে যায়। আর কারা যে এমন গুজব ছড়ায় সেটাই বুঝিনা। কিছুদিন পর পর বিভিন্ন শিল্পীদের মৃত্যুর গুজব ছড়ানো হয়। শাবনূর আপার কিছুই হয়নি। তিনি ভালো আছেন, সুস্থ আছেন, বেঁচে আছেন। অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতেই আছেন তিনি। শিগগিরই বাংলাদেশে ফিরবেন। কেউ দুশ্চিন্তা করবেন না। আর দয়া করে এমন গুজব ছড়াবেন না কেউ।

বছর দুয়েক আগে গুজব ছড়িয়ে ছিল নব্বই পরবর্তী বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় নায়িকা শাবনূর এক ভয়ংকর রোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন। কিন্তু এবার গুজব ছরিয়েছে সরাসরি তার মৃত্যুর সংবাদে। শাবনূরের মৃত্যুর খবরে সয়লাব সোশ্যাল মিডিয়া।

কিংবদন্তি পরিচালক এহতেশামের হাত ধরে ১৯৯৩ সালে ‘চাঁদনী রাতে’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে অভিষেক ঘতে শাবনূরের। প্রথম ছবিটি ব্যার্থ হলেও তার সফলতার গল্প শুরু হয় পরের বছর থেকে। ১৯৯৪ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত জহিরুল হক পরিচালিত ‘তুমি আমার’ ছবিটি দিয়ে সফলতা লাভ করেন। সালমান শাহের সঙ্গে জুটি বেঁধে এই নায়িকা ১৪টি ছবি করেন। তার সবগুলোই রেকর্ড সংখ্যকভাবে ব্যবসায়িক সাফল্য পায়। এটি বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে সফল জুটিগুলোর অন্যতম। বলা হয়ে থাকে সালমান-শাবনূর জুটি ইন্ডাস্ট্রির মিথ। পরবর্তীতে এদের আদর্শ মেনেই এখানে নায়ক-নায়িকার জুটি গড়ে উঠেছে। তবে সালমানের যুগে ওমর সানী, অমিত হাসান, আমিন খান, বাপ্পারাজদের সঙ্গেও অভিনয় করে সফলতা পান শাবনূর।

সালমান মৃত্যু পরবর্তী সময়ে রিয়াজ, শাকিব খান ও ফেরদৌসসহ অনেক নায়কের সঙ্গেই অভিনয় করে সফল হন শাবনূর। তবে রিয়াজের সঙ্গে প্রায় অর্ধশত চলচ্চিত্রে জুটি বাঁধেন তিনি। এবং সবগুলো ছবিই ছিল ব্যবসায়িকভাবে সফল এবং আলোচিত। বলা হয়ে থাকে, রিয়াজ-শাবনূর জুটির পর ঢাকাই চলচ্চিত্রে সর্বজনীনভাবে জনপ্রিয় সুপারহিট আর কোনো জুটি আসেনি।

এই জুটির ‘শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ’, ‘মোল্লাবাড়ির বউ’, ‘প্রেমের তাজমহল’, ‘বুক ভরা ভালোবাসা’, ‘ও প্রিয়া তুমি কোথায়’, ‘এ বাঁধন যাবে না ছিড়ে’, ‘মন মানে না’ ইত্যাদি ছবিগুলো মাইলফলক হয়ে আছে এদেশীয় চলচ্চিত্রে ব্যবসায়িক সাফল্যের ইতিহাসে।

আরও পড়ুন