জাবির দর্শন বিভাগে শিক্ষক নিয়োগ অবৈধ উল্লেখ করে হাইকোর্টে রিট

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগে ৬ জন শিক্ষক নিয়োগের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়েছে। রিটে শিক্ষক নিয়োগে সার্কুলারের কার্যকারিতা স্থগিত চাওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় দর্শন বিভাগের চার শিক্ষক এ রিট দায়ের করেন।

রিটকারী শিক্ষকরা হলেন, ড. মো. কামরুল আহসান, ড. এস এম আনোয়ার উল্লাহ ভূঁইয়া, মো. জাকির হোসাইন ও আব্দুস সাত্তার।

 

রিটকারীদের আইনজীবী অ্যাডভোকেট সৈয়দা নাসরিন বলেন, গত ১১ ফেব্রুয়ারি দর্শন বিভাগে ছয় শিক্ষক নিয়োগে বিজ্ঞপ্তি দেয় বিশ্ববিদ্যালয়। করোনার সময় যেখানে শিক্ষার্থীরা ক্লাস করার সুযোগ পাচ্ছে না, সেখানে তড়িঘড়ি করে অনলাইনে শিক্ষক নিয়োগের সিদ্ধান্তকে হঠকারী সিদ্ধান্ত বলে এটি বাতিলের দাবি জানিয়ে আসছিলেন জাবির দর্শন বিভাগের শিক্ষকেরা।

এই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি স্থগিত করতে এর আগে এ বিষয়ে আইনি নোটিশ দেওয়া হয়েছিল। এরপরও আগামী ১২ জুন অনলাইনে মৌখিক পরীক্ষার তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। তাই শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া স্থগিত চেয়ে রিট করা হয়েছে বলে জানান আইনজীবী। রিটে শিক্ষা সচিব, ইউজিসির চেয়ারম্যান, জাবির উপাচার্য, রেজিস্ট্রারসহ সংশ্লিষ্টদের বিবাদী করা হয়েছে।

এদিকে, জাবিতে অনলাইনে নিয়োগের মৌখিক পরীক্ষার বিষয়ে অবগত নন দাবি করে ইউজিসি সদস্য ড. দিল আফরোজা বেগম বলেন, ‘আমাদের কাছে শিক্ষক নিয়োগের কোনো চাহিদাই আসেনি।’

তিনি আরও বলেন, ‘অনলাইনে শিক্ষক নিয়োগ কোনোভাবেই হতে পারে না। বোর্ডে একজন প্রার্থীকে সামনাসামনি দেখতে হয়, তার সার্টিফিকেট দেখতে হয়। অনলাইনে কীভাবে সম্ভব? আমরা কেবল বলেছি-অনলাইনে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা নেওয়ার বিষয়ে। তাও অনেক নীতিমালা উল্লেখ করেছি। সেগুলো রেকর্ড করতে বলা হয়েছে।’

 

আরও পড়ুন